পারস্পরিক সম্মতিতে শারীরিক সম্পর্ককে ধর্ষণ বলে বিবেচনা করা যাবে না: ভারতীয় সুপ্রিমকোর্ট

ইমান২৪.কম: পারস্পরিক সম্মতিতে কোনো জুটির মধ্যে শারীরিক (যৌন) সম্পর্ক হওয়ার পর পুরুষটি যদি নারীকে দেওয়া বিয়ের প্রতিশ্রুতি রক্ষায় ব্যর্থ হয়, তবে তা ধর্ষণ বলে বিবেচনা করা যাবে না।সোমবার ভারতের সুপ্রিমকোর্টের এক পর্যবেক্ষণে এমন কথা বলা হয়েছে।

কল সেন্টারের দুই কর্মীর মামলার শুনানিতে দেশটির সুপ্রিমকোর্ট জানায়, বিয়ের ভুয়া প্রতিশ্রুতি দেওয়া ঠিক না। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, পারস্পরিক সম্মতিতে নারী-পুরুষের দীর্ঘ দিনের শারীরিক (যৌন) সম্পর্ককে ধর্ষণ বলে আখ্যায়িত করা হবে।

ওই দুই কর্মী দীর্ঘ পাঁচ বছর একসঙ্গে বসবাস করেছেন। পরে পুরুষটি আরেকটি মেয়েকে বিয়ে করে চলে যান। ডিএনএ ইন্ডিয়া ও টাইমস অব ইন্ডিয়া এমন খবর দিয়েছে।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পুরুষ সঙ্গীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দেন নারী কর্মী। বিয়ের ভুয়া প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

ভারতের প্রধান বিচারপতি এস এ ববদি ও বিচারপতি এএস বোপান্না এবং রামাসুব্রামনিয়ার বেঞ্চ এই পর্যবেক্ষণ দেন।

মামলায় বিবাদী পক্ষের আইনজীবী ভিবহা দত্ত মাখিজা বলেন, যদি পারস্পরিক সম্মতিতে হওয়া শারীরিক (যৌন) সম্পর্ককে ধর্ষণ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় এবং তাতে পুরুষটিকে আটক করা হয়, তবে তা ভয়ঙ্কর এক উদহারণ হয়ে থাকবে।

আর বাদী পক্ষের আইনজীবী আদিত্য ভাশিসথ বলেন, পুরুষটি সবাইকে দেখিয়েছেন যে তিনি ওই নারীর স্বামী এবং এভাবে তারা দীর্ঘদিন একসঙ্গে বসবাস করেছেন। তারা মন্দিরে গিয়ে বিয়েও করেছেন। কিন্তু পরে ওই নারীকে আঘাত করে তার কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আরেকজনকে বিয়ে করে কেটে পড়ে।

ফেসবুকে লাইক দিন