মুসলিম সেজে ফিলিস্তিনিদের ওপর গুপ্তহত্যা চালাচ্ছে ইসরাইলী গুপ্তঘাতকেরা

ইমান২৪.কম: ফিলিস্তিনের গাজায় টানা ১১ দিন তাণ্ডব চালানোর পরও ক্ষান্ত হয়নি ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল। এখন ফিলিস্তিনের বিভিন্ন এলাকায় আরব মুসলিমদের মতো পোশাক পরে গুপ্তহত্যা চালাচ্ছে সহিংস আচরণের জন্য বিশ্বজুড়ে পরিচিত ইহুদিবাদী ইসরাইলের গুপ্ত বাহিনী মুসতা’রিবিন।

এমনকি তারা আরবি ভাষায় কথা বলে। মূলত যুদ্ধবাজ ইসরাইলী সরকারের নির্দেশে প্রতিশোধ নিতেই এই হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা। সম্পতি আল-আমারি শরণার্থী শিবিরে আহমেদ ফাহাদ (২৪) নামে এক নিরপরাধ ফিলিস্তিনী যুবককে হত্যা করে ইহুদিবাদীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের গুপ্তঘাতকরা।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানা যায়, আহমেদ ফাহাদের পরিবার জানায়, ইসরাইলী গুপ্তচরেরা প্রথমে ফাহাদকে আটক করে। ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে তাকে বেশ কয়েকবার গুলি করা হয়। পরে ফিলিস্তিনের রামাল্লার কাছে উম আল শরায়েত এলাকায় একটি রাস্তায় গত মঙ্গলবার তার মরদেহ ফেলে যাওয়া হয়।

এ বিষয়ে ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মুহাম্মাদ আল-আওদা বলেন, রামাল্লা হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ফাহাদকে খুব কাছ থেকে কয়েকটি গুলি করা হয়েছে। রামাল্লায় নিযুক্ত মানবাধিকার সংস্থা আল-হক এর মানবাধিকারকর্মী শাওয়ান জাবারিন বলেন, ইসরাইলী বাহিনী ফিলিস্তিনিদের হত্যা করে যাচ্ছে।

গুপ্ত সংস্থার পরিচালিত এসব হত্যাকাণ্ড কোনো দুর্ঘটনা নয়। আহমেদ ফাহাদের হত্যা নিয়ে তদন্ত চলছে। নিয়মিত বাহিনীর পাশাপাশি মুসতা’রিবিন নামে ইসরাইলী গুপ্ত সংস্থার সদস্যরা ফিলিস্তিনিদের হত্যা করছে।

শাওয়ান জাবারিন বলেন, গুলি করে হত্যার পরে ইসরাইলী শিন বেত গোয়েন্দা কর্মকর্তারা পরিবারগুলোকে ফোন করে। যাদের এভাবে হত্যা করা হয়, তাদের বিরুদ্ধে ইসরাইলী বাহিনীর ওপর সশস্ত্র হামলার অভিযোগ আনা হয়। এটা স্পষ্ট যে প্রতিশোধ নিতেই এ ধরনের হামলা চালানো হয়। শাওয়ান জাবারিন আরও বলেন, প্রতি রাত দুইটার পরে রামাল্লায় ইসরাইলী সেনারা এসে ধরপাকড় চালায়।

ফেসবুকে লাইক দিন