হেফাজত ইস্যুতে ছাত্রলীগ নেতাকে ‘হেনস্তার’ অভিযোগ এনে আ.লীগ নেতা বহিষ্কার

ইমান২৪.কম: হেফাজত ইসলামের বিরুদ্ধে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগের এক নেতাকে পুলিশের সামনে ‘হেনস্তা’ করার অভিযোগ এনে ধর্মপাশা থানার দুই পুলিশ অফিসারকে সুনামগঞ্জ পুলিশ লাইনে প্রত্যাহারের পর জয়শ্রী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলমকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বুধবার (৭ এপ্রিল) বিকেলে ধর্মপাশা উপজেলা আ.লীগের জরুরি সভায় আবুল হাশেম আলমকে বহিষ্কার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে ধর্মপাশা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ বিলকিছ বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক।

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে জয়শ্রী ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলমকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্তটি অনুমোদনের জন্য জেলা কমিটিতে পাঠানো হবে। আলম অতীতে আ.লীগের রাজনীতি করেনি। তার মতে, এ ঘটনার জন্য জয়শ্রী ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলম ও তার ছেলে আল মুজাহিদ দায়ী।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিকেলে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের জয়শ্রী বাজারে ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের উপ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আফজাল খান (২৪)‘ হেনস্তার’ শিকার হন বলে অভিযোগ আনা হয়। আফজালের বাড়ি উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামে।

সে ঢাবিতে সমাজকল্যাণ বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী। জানা যায়, ঢাবি ছাত্রলীগ নেতা আফজাল গত ২৯ মার্চ দুপুরে ফেসবুকে হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে ছবি দিয়ে একটি পোস্ট দেন। কয়েক ঘণ্টা পর পোস্টটি ’অনলি মি’ করে রাখনে। স্থানীয় কিছু যুবক ফেসবুক পোস্টের স্ক্রিনশট নিয়ে রাখেন।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিকেল ৫টায় আফজাল নিজ গ্রাম মহেশপুর থেকে জয়শ্রী বাজারে গেলে জয়শ্রী ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলমের ছেলে আল মুজাহিদ (২৫) কিছু মানুষকে নিয়ে আফজালের কাছে ফেসবুক পোস্টের বিষয়ে ব্যাখ্যা চান।

তখন ছাত্রলীগ নেতা আফজাল দাবি করেন, হেফাজতে ইসলামকে ব্যঙ্গ করে কোনো পোস্ট দেননি। এনিয়ে শিক্ষার্থী আফজাল ও মুজাহিদের মধ্যে হঠাৎ কথা-কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে মুজাহিদ আফজালের উপর চড়াও হয় বলে দাবি করা হয়। পরে মুজাহিদের পক্ষের লোকজন ছাত্রলীগ নেতা আফজালকে বাজারে থাকা ইউনিয়ন আ.লীগের দলীয় কার্যালয়ে আটকে রাখেন বলেও অভিযোগ করা হয়।

ফেসবুকে লাইক দিন