১৫ লাখ টাকার নৌকা ঢাকায় আনার অনুমতি না পেয়ে বাপ পুতের আহাজারি

ইমান২৪.কম: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে ‘জল ডাঙা মুজিব পরিবহন’ নিয়ে কারিগর মো. ইউসুফ ঢাকায় যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সবধরনের প্রস্তুতি নিয়েও প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় তিনি যেতে পারেননি।

গত বুধবার (১৭ মার্চ) দুপুরে ইউসুফ নিজেই এতথ্য নিশ্চিত করেন। এদিকে নৌকাটি ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার অনুমতি না পেয়ে ভেঙ্গে পড়েছেন নৌকার কারিগর ইউসুফ এবং তার বাবা! মনে কষ্ট নিয়ে নৌকার কারিগর ইউসুফ সাংবাদিকদের বলেন, গত এই তিন বছর আমি রাতে মাত্র ২ থেকে ৩ ঘন্টা ঘুমাইছি! এই নৌকা আমার অনেক কষ্টের ফসল!

আমি সারাদিন অন্যের বাড়িতে বাড়িতে কাজ করতাম এবং সন্ধায় এসে নৌকা বানানো শুরু করতাম৷ এখন যদি আমাদের মা প্রধানমন্ত্রী এই নৌকাটি গ্রহন করে তাহলে আমি সহ গ্রামবাসী সবাই খুশি হবে! মুজিব বর্ষে আমাদের পক্ষ থেকে দেওয়া এই উপহারটি গ্রহন করেন প্রধানমন্ত্রী এটাই আমাদের অনুরোধ!

এসময় নৌকার কারিগর ইউসুফের বাবা বলেন, আমরা শেখ মুজিবকে ভালোবাসি সাথে শেখ হাসিনাকে ভালোবাসি! আমার ছেলে দিনে ৫০০ টাকা আয় করলে তার ৪০০ টাকা নৌকায় দিছে আর ১০০ টাকা সংসারে! এভাবেই আমার ছেলে অনেক কষ্টে তৈরী করেছে এই নৌকাটি! নৌকাটি বানানোর বুদ্ধি প্রথমে আমি দিছিলাম!

এখন যদি নৌকাটি প্রধানমন্ত্রী গ্রহন করে নেয়, তাহলে মনে করবো এটাই আমার দুনিয়ার সুখ! এদিকে সোমবার (১৫ মার্চ) স্থানীয়ভাবে নৌকাটি উদ্বোধন করেছেন মো. ইউসুফ। কিন্তু অনুমতি না পাওয়ায় পূর্ব নির্ধারিত সময় বুধবার নৌকাটি নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিতে পারেননি।

তিন বছর ধরে বানানো নৌকাটি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেয়ার স্বপ্ন এখনো রামগতিতে আটকে আছে! প্রধানমন্ত্রীর কাছে নৌকাটি পৌঁছে দিয়ে স্বপ্ন পূরণ করতে চান তিনি। ইউসুফ জানান, তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে রাস্তা দিয়ে চালিয়ে নৌকাটি নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল মোমিন ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সোলাইমান আপাতত তাকে ঢাকায় যেতে নিষেধ করেছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হবে বলে তাকে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউএনও আব্দুল মোমিন বলেন, ‘জেলা প্রশাসককে নৌকাটি দেখানো হবে। এটি দেখতে তিনি আসার কথা ছিল।

কিন্তু আসতে পারেননি। ডিসির অনুমতি পেলেই পাঠানোর জন্য বলা হবে।’ এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোছাইন আকন্দ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর জন্য উপহার হিসেবে একটি উভচর নৌকা বানানোর ঘটনাটি আমি গণমাধ্যম সূত্রে জানতে পারি। তবে এ ব্যাপারে নৌকার কারিগর বা তার পরিবার কেউই আমার কাছে কোনো আবেদন করেনি। তবুও আমি নৌকাটি দেখতে যাব।

এরপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’প্রসঙ্গত, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে ইউসুফ নৌকাটি নির্মাণ করেন। এটি পানি ও সড়ক পথে চলবে। তিন বছর ধরে ক্লান্তিহীন পরিশ্রম করে প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয় করে এটি নির্মাণ করেছেন তিনি। যাত্রীসহ বুধবার নৌকাটি রাস্তা দিয়ে চালিয়ে ঢাকায় যাওয়ার কথা ছিল তার। ঢাকায় যাওয়ার বিষয়ে অনুমতি চেয়ে বিষয়টি তিনি ইউএনওকে জানিয়েছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন