সেই ১৭ জনের জানাজা হলো একই মাঠে

ইমান২৪.কম: রাজশাহীর কাটাখালীতে যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে সংঘর্ষের পর পিকনিকের একটি মাইক্রোবাসের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্ট আগুনে পুড়ে নিহত ১৭ জন নিহত হয়। শুক্রবার (২৬ মার্চ) দুপুর পৌনে ২টার দিকে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কের কাপাশিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। উক্ত সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১৭ জনের জানাজা একই মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৭ মার্চ) রাত ১১টার দিকে পীরগঞ্জ উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার মাঠে প্রথমে আটজনের ও পৌনে ১২টার দিকে বাকি নয়জনের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মরদেহগুলোর ময়নাতদন্ত হয়। পরে বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত স্বজনদের কাছে মরদেহগুলো হস্তান্তর করে কাটাখালী থানা পুলিশ। সেখান থেকে পিকআপ ভ্যান, মাইক্রোবাসে ও অ্যাম্বুলেন্সে করে মরদেহগুলো পীরগঞ্জে আনা হয়।

দুর্ঘটনায় নিহত ১৭ জনের মধ্যে ১০জনই রামনাথপুর একই ইউনিয়নের বাসিন্দা। বাকি ৭ জনের তিনজন পীরগঞ্জ পৌরসভার প্রজাপাড়ার, একজন থানাপাড়ার, দুইজন রায়পুর ইউনিয়নের দ্বাড়িকাপাড়ার এবং আরেকজন মিঠিপুর ইউনিয়নের দূরামিঠিপুর দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা।

রামনাথপুর ইউনিয়নের বড় মজিদপুরে একই পরিবারের পাঁচজনকে ও বড় রাজারামপুরে আরেকটি পরিবারের চারজনকে একসঙ্গে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এছাড়া নিহত অন্যদের পারিবারিক ও স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের মহজিদপুর গ্রামের ফুল মিয়া (৪০), তার স্ত্রী নাজমা বেগম (৩৫), ছেলে ফয়সাল মিয়া (১৫), মেয়ে সুমাইয়া (৭) ও ছোট মেয়ে সাজিদা (৩) ; একই ইউনিয়নের দুরামিঠিপুর গ্রামের সাইদুর রহমান (৪৫), চৈত্রকোল ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি গ্রামের ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন (৩৯), তার স্ত্রী শামছুন্নাহার (৩২), শ্যালিকা কামরুন্নাহার বেগম (২৫), ছেলে সাজিদ (১০) ও মেয়ে সাবাহ খাতুন (৩); পীরগঞ্জ পৌরসভার প্রজাপাড়ার মোটরসাইকেল মেকার তাজুল ইসলাম ভুট্টো (৪০), তার স্ত্রী মুক্তা বেগম (৩৫), ছেলে ৮ম শ্রেণির ছাত্র ইয়ামিন (১৪); রায়পুর ইউনিয়নের দ্বাড়িকাপাড়া গ্রামের মোকলেছার রহমান (৪০), তার স্ত্রী পারভীন বেগম (৩৫), ছেলে পাভেল মিয়া (১৮)।

মাইক্রোবাস চালক পৌরসভার পঁচাকান্দর গ্রামের হানিফ মিয়া ওরফে পঁচা (৩০) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

অন্যদিকে হানিফ পরিবহনের বাসটি মহাসড়কের উল্টো দিকে গিয়ে খাদে পড়ে যায়। সেখান থেকেও ৯ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেলে নেওয়া হয়েছে। আরএমপি পুলিশের কর্মকর্তারা জানান, মাইক্রোবাস ও হানিফ পরিবহনের বাসটি ১৩০ কিলোমিটার গতিতে চলছিল। মাইক্রোর আগুনে লেগুনাটিও ভস্মীভূত হয়। তবে সেখানে কোনো যাত্রী বা চালক ছিলেন না।

ফেসবুকে লাইক দিন