সামনে নির্বাচন, নতুন করে জ্বলে উঠবে শিবির

ইমান২৪.কম: বন্দরনগরী চট্টগ্রামে নির্বাচনের আগে নাশকতার আশঙ্কায় শিবির অধ্যুষিত মেসগুলোতে সাঁড়াশি অভিযান চালানোর নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ। সেই সঙ্গে বস্তি এলাকাগুলোতেও বাড়ানো হয়েছে নজরদারি। বিশেষ করে নাশকতা সৃষ্টির জন্য শিবিরের নেতা-কর্মীরা নগরীর মেসগুলোতে নতুন করে সংগঠিত হওয়ার তথ্য পাওয়ার পরেই এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিন দশকের বেশি সময় ধরে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ছাত্রদের আবাসিক সুবিধার কথা বলে মেস তৈরি করে দলীয় কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলো শিবির।

বিশেষ করে চান্দগাঁও, চকবাজার, মুরাদপুর, দেওয়ান বাজার, চন্দনপুরা শিবিরের ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত ছিলো। গত নির্বাচনের আগে নাশকতা প্রতিরোধে পুলিশের অভিযানের মুখে এসব এলাকার মেস ছাড়তে বাধ্য হয় শিবিরের নেতা-কর্মীরা। কিন্তু আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে শিবিরের নেতা-কর্মীরা পুনরায় মেসগুলোতে ফিরতে শুরু করেছে বলে তথ্য পেয়েছে পুলিশ। সিএমপি অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আমেনা বেগম বলেন, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিবিরকর্মীকে আমরা আটক করতে পেরেছি। তাদের কাছে লিফলেট, বই ইত্যাদি পাওয়া গেছে।’

বিশিষ্টজনদের মতে, শিবিরের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তেই সারাদেশের মেসগুলো পরিচালিত হয়। মেসের আড়ালেই চলে শিবিরের সাংগঠনিক শক্তি সঞ্চয় এবং কার্যক্রম। এমনকি চট্টগ্রামে হাতছাড়া হয়ে যাওয়া মেসগুলো পুনরুদ্ধারের পাশাপাশি বহদ্দারহাট, হালিশহর, কর্ণফুলী’র মতো নতুন নতুন এলাকায় মেস তৈরি করছে বলে তথ্য বের হয়ে আসছে। প্রজন্ম ৭১ বিভাগীয় সভাপতি প্রফেসর ড. গাজী সালাহউদ্দিন বলেন, তারা যে অপারেশনগুলো করে, এমনভাবে করে যেন পুলিশ না বুঝতে পারে।

এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় এসে করে।’ প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার বলেন, ‘বেশ কিছু জায়গাতে তারা সংগঠিত হচ্ছে। আমার মনে হয়, এ সময় জায়গাগুলোতে বার বার খোঁজ নিলেই তাদের ধরা সম্ভব।’ সিএমপি কমিশনার জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় শিবিরের অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা চলছে। সে সাথে শিবির অধ্যুষিত মেসগুলোতে নিয়মিত অভিযান চালাতে নগরীর ১৬ থানার অফিসার ইনচার্জদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সিএমপি পুলিশ কমিশনার মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘সিটিএসবি এবং গোয়েন্দা বিভাগের কার্যক্রম আরো বাড়িয়েছি। তাদের নতুন ও পুরাতন জায়গাগুলোতে আমরা আরো বেশি খোঁজ লাগিয়েছি।’ এদিকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা পাওয়ার পর গত সপ্তাহে শিবিরের মোট ৪৭ জন নেতাকে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ। এর মধ্যে বাকলিয়া থানায় ১৯ জন, সদরঘাট থানায় ১৩ জন, ডবলমুরিং থানায় ৮ জন এবং পাহাড়তলী থানায় রয়েছে ৫ জন।

আরও সংবাদঃ এবার সৌদি বাদশাহকে যে কথা বলে সতর্ক করলেন এরদোগান

বিশ্বের তৃতীয় পারমাণবিক অস্ত্র মজুতকারী দেশ হতে যাচ্ছে পাকিস্তান

ফেসবুকে লাইক দিন