‘ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর না করলে তোর স্বামীকে খুন করে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দেব’

রাজধানীর মহাখালী এলাকা থেকে অপহরণের আড়াই মাস পর শহিদুল ইসলাম নামের অপহৃত এক যুবককে উদ্ধার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ঢাকা মেট্রো। রোববার রাতে অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়।

পিবিআই জানায়, গত ২ মে সকালে সবুজবাগের মধ্য বাসাবোর ৫১ নম্বর বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার পর দুষ্কৃতিকারীরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে শহীদুলকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় শহীদুলের স্ত্রী মোছা. বকুল আক্তার আখি বাদি হয়ে আদালতে মামলা করেন।

মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, একই গ্রামের হওয়ায় মামলার আসামি মাকুল আক্তার লিপি ওরফে মুকুল (৩৬), সুফিয়া বেগম (৫৫), আওয়াল মাষ্টার (৪৮), মিন্টু (৪১), হাসি (৩০) ও সোহেল (৩২) বিভিন্ন সময় সুবজবাগে শহীদুলের বাসায় আসা যাওয়া করতেন। একপর্যায়ে সুফিয়া বেগম শহীদুলের স্ত্রী আঁখির কাছে ব্যবসার জন্য ৫ লাখ টাকা ধার চান। দিতে অস্বীকার করলে সুফিয়া বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে আঁখির ক্ষতি করবে বলে হুমকি দেন। এরই প্রেক্ষিতে ২ মে আঁখির স্বামী শহিদুলকে অপহরণ করে সুফিয়ার লোকজন।

পরে শহিদুলের মোবাইল থেকে স্ত্রী আখির মোবাইলে অপহরণকারীরা ফোন করে বলে ‘তুই যদি আমাদের কথামত ৫ লাখ টাকা চাঁদা না দিস কিংবা আমাদের কথামতো খালি ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর না করিস, তাহলে তোর স্বামীকে খুন করে টুকরা টুকরা করে বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দেব’।
পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বশির আহমেদ জানান, আদালতের নির্দেশে ঘটনার তদন্ত শুরু করে পিবিআই। এরই প্রেক্ষিতে পিবিআই ঢাকা মেট্রোর একটি টিম মহাখালী থেকে অপহৃতকে উদ্ধার করে।

ফেসবুকে লাইক দিন