নতুন করে আরো ১০০টি মার্কিন স্থাপনা টার্গেট করা হয়েছে: ইরান

ইমান২৪.কম: ইরাকে মার্কিন সেনা ও যৌথ বাহিনী ব্যবহৃত দু’টি সামরিক ঘাঁটিতে ‘হা’মলা করে ইরান, যার মধ্যে একটি হল আল আসাদে এবং অপরটি হল ইরবিলে।

স্থানীয় সময় রাত ১টা বেজে ২০ মিনিটে প্রথম হাম’লাটি করা হয় বলে জানা যায়। গত শুক্রবার ওই একই সময়ে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন ড্রোন হা’মলায় মৃ’ত্যু হয় ইরানের সেনাবাহিনীর অভিজাত কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানির।

এই ঘটনার প্রতিশো’ধ নিতে ঠিক ওই সময়েই প্রথমে ইরাকের আল আসাদে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ছয়টি ক্ষেপণা’স্ত্র নিক্ষেপ করা হয়।

তার প্রায় দু’ঘণ্টা পর দ্বিতীয় বার হা’মলা করা হয়। তবে ১৫টি নয়, সবমিলিয়ে মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে হা’মলার সময় ইরান মোট ২২টি ক্ষেপণা’স্ত্র ছোড়ে বলে দাবি করেছে ইরাক।

এর আগে জেনারেল কাসেম সোলাইমনি হ’ত্যার পর প্রকাশ্যে ইরানকে হুঁ’শিয়ারি দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জেনারেল সোলাইমানি হ’ত্যার বদলা হিসাবে কোনো মার্কিন নাগরিক বা প্রতিষ্ঠানের উপর হা’মলা হলে, আমেরিকা ইরানের আরও ৫২ জায়গা আ’ক্রমণ করার জন্য চিহ্নিত করে রেখেছে বলে দাবি করেছিলেন ট্রাম্প।

তবে বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে পাল্টা হুঁ’শিয়ারি দিয়েছে ইরান। ইরানের সেনাবাহিনীর বিশেষ সূত্রকে উদ্ধৃত করে ওই টিভি চ্যানেলে বলা হয়, ইরাকে আরো ১০০টি জায়গা চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশো’ধ নিতে এলেই চিহ্নিত ওই ১০০টি জায়গায় পাল্টা আঘা’ত হানবে ইরান।

এদিকে ইরাকে অবস্থিত দুটি মার্কিন সেনা ঘাঁটিতে ইরানের ছোড়া ক্ষেপণা’স্ত্রের আঘাতে কমপক্ষে ৮০ জন ‘মার্কিন সন্ত্রা’সী’ নিহ’ত হয়েছে বলে দাবি করেছে তেহরান।

জেনারেল কাসেম সোলাইমানির হ’ত্যার বদলা নিতেই এই হা’মলা চালানো হয়েছে বলেও জানিয়েছে তারা।

ইরানের সেনাবাহিনীর ‘ইসলামিক রেভলিউশনারি কোর’-এর একটি সূত্রকে উদ্ধৃত করে বুধবার সকালে এমনটাই জানিয়েছে সে দেশের সরকারি টিভি চ্যানেল। তাদের দাবি, ইরাকে মার্কিন সেনা ও যৌথ বাহিনীকে নিশানা করে মোট ১৫টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণা’স্ত্র ছুড়েছিল তারা, যার মধ্যে একটিকেও প্রতিহ’ত করতে পারেনি মার্কিন বাহিনী।

বরং তার আঘা’তে অন্তত ৮০ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। যাদের তারা ‘মার্কিন জ’ঙ্গি’ বলে অভিহিত করেছে। ইরানি হা’মলায় ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়েছে বেশ কয়েকটি মার্কিন হেলিক’প্টার এবং সামরিক সরঞ্জাম।

ফেসবুকে লাইক দিন