লক্ষ্মীপুরে ভাবিকে জড়িয়ে ধরতে বাধা দেয়ায় বড় ভাইকে খুন

ইমান২৪.কম: লক্ষ্মীপুরে বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরা নিয়ে ছোট ভাই মান্নানের হাতে বড় ভাই আবদুল হান্নান (২৫) খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় মান্নানকে আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার পার্বতীনগর ইউনিয়নের আটিয়া বাজার এলাকায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত হান্নান পার্বতীনগর ইউনিয়নের বাসিন্দা আবুল কালামের ছেলে। তারা দুই ভাই বেড়জাল দিয়ে মাছ শিকার করতেন।

নিহতের বাবা আবুল কালাম জানান, রাতে হান্নানের স্ত্রী সালমা আক্তারের ঘরে উঁকি দেয় ছোট ভাই মান্নান। এ সময় বড় ভাই বিষয়টি টের পান। এ নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরেন ছোট ভাই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে হান্নান দা নিয়ে ছোট ভাইকে তেড়ে আসেন। পরে হান্নানের হাত থেকে দা ছিনিয়ে নিয়ে তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন মান্নান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রানা দাশ বলেন, বড় ভাইকে হত্যার অভিযোগে ছোট ভাইকে আটক করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ভাবিকে জড়িয়ে ধরার বিষয় নিয়ে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

শিক্ষক ছাত্রীদের বললেন: ‘তোমরা নাচো, আমি টাকা ওড়াব’

শিক্ষক ছাত্রীদের বললেন: ‘তোমরা নাচো, আমি টাকা ওড়াব’

ছাত্রীদের নাচের এক অনুশীলনে উপস্থিত হয়ে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তালুকদার মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন। এ বিষয়ে বিভাগীয় প্রধান বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. হিমাদ্রী শেখর রায়।

জানা যায়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন-ই-এর ৪১৯ নম্বর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। আগামী ১ মার্চ বিভাগের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে নাচ-গানের অনুশীলন করেছিলেন শিক্ষার্থীরা।

অভিযোগপত্রে উল্লেখিত ও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যক্ষদর্শী এক শিক্ষার্থী জানান, গত ৯ ফেব্রুয়ারি শিক্ষার্থীদের নাচ-গানের অনুশীলন কক্ষে ওই শিক্ষক প্রবেশ করেন। এ সময় ওই কক্ষে কয়েকজন ছাত্রী নাচের অনুশীলন করছিলেন। তিনি তাদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘রমণীরা আপনারা নাচেন, আমি দেখি’।

সঙ্গে থাকা একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘আজ আপনাদের নাচের প্রতিটি মুদ্রায় একটা করে টাকা ওড়াব আমি’।

তবে সঙ্গে সঙ্গেই শিক্ষকের এমন অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যের প্রতিবাদ করেন উপস্থিত শিক্ষার্থীরা। তারা বলেন, এটা তো আমাদের জন্য অপমানজনক। আমরা নাচি, কারণ নাচ একটা শিল্প। আমরা টাকার জন্য নাচি না। এ সময় ওই শিক্ষক টাকা উড়িয়ে বলেন, এভাবে টাকা ওড়ানো একটা শিল্প। টাকা এভাবে যাবে, আবার আসবে।

এদিকে টাকা ওড়ানোর বিষয়টা একেবারে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন অভিযুক্ত শিক্ষক তালুকদার মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন। অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যর বিষয়ে বলেন, মজার ছলে কিছু কথা বলেছিলাম, শিক্ষার্থীরা ব্যাপারটা এরকমভাবে নেবে আমি বুঝতে পারিনি।

ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. হিমাদ্রী শেখর রায় বলেন, একজন শিক্ষক হিসেবে তিনি এ ধরনের আচরণ করতে পারেন না। বিভাগের শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইংলিশ কাউন্সিলের মিটিংয়ের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট শিক্ষককে ওই ব্যাচের কোর্স থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে তিনি ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের কোনো একাডেমিক কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না।

আরও পড়ুন:  হামলার মহড়া দিতে গিয়ে ভারতের দুই বিমান ধংস

চুপ করে বসে থাকবো না, পাল্টা হামলা চালাব: ইমরান খান

হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?

ভারত-পাকিস্তান সিমান্ত রণসাজে সজ্জিত, ৬০০ ট্যাংক পাঠালো পাকিস্তান

আবারও ব্যাপক সংঘর্ষ কাশ্মীরে, ভারতীয় বাহিনীর মেজর-সহ নিহত ৫

জাপানি নারীর ইসলাম গ্রহণের হৃদয়বিধারক ঘটনা ও পর্দার প্রতি সন্মান

ফেসবুকে লাইক দিন