রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে এবং থাকবে: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

ইমান২৪.কম: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান ও মাওলানা গাজী আতাউর রহমান সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ কর্তৃক সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দিতে রাজনৈতিক দলগুলোকে দেয়া আইনি নোটিশে গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার এক যৌথ বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়ার চক্রান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছেন, মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশকে স্পেনের মত বিধর্মী রাষ্ট্রে পরিণত করতে একটি মহল দীর্ঘদিন যাবৎ ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

বর্তমান সরকারের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে ঐ ষড়যন্ত্রকারী মহলটি সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দিতে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে আইনি নোটিশ পাঠিয়ে মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। তথাকথিত একজন উগ্র হিন্দু উকিল এধরণের নোটিশ পাঠিয়ে সংবিধান পরিপন্থি কাজ করেছে।

ঐ গোষ্ঠি আল্লাহর নাম মুছে দেয়া, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অবমাননা, কোরআন বিরোধী নারী নীতিমালাসহ একের পর এক জঘন্য ষড়যন্ত্রে তারা সক্রিয়। এখন বাকিটুকু যা রয়েছে তাও বাদ দিতে তারা উঠে পরে লেগেছে।

এদেশে কার্যত রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম না থাকলেও ইসলাম শব্দটুকুও তারা সহ্য করতে পারছে না। যারা ইসলাম, মুসলমান, মসজিদ, মাদরাসা সহ্য করতে পারে না, ৯২ ভাগ মুসলিম দেশে তাদের থাকার কোন অধিকার নেই।

তারা দলমত নির্বিশেষে সকল মুসলমান, আলেম-উলামাদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবে ইসলামের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। নেৃতৃবন্দ বলেন, রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সাংবিধানিক স্বীকৃত।

এর বিরোধিতা বাংলাদেশের সংবিধান পরিপন্থি ও রাষ্ট্রদ্রোহীতার শামিল। যারা রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সংবিধান থেকে বাদ দিতে চায়, তারাই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী, বাংলাদেশের দুশমন, প্রকৃত স্বাধীনতা বিরোধী, ইসলাম ও মুসলমানদের দুশমন। এদেশের মুসলমানরা প্রয়োজনে বুকের তাজা রক্ত দিবে, শহীদ হবে কিন্তু সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিল হতে দেবে না।

ফেসবুকে লাইক দিন