রাজধানীতে সৃষ্টির সেবা ফাউন্ডেশনের খাবার বিতরণ

ইমান২৪.কম: দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে সবাইকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। এই পরিস্থিতিতে বিপদে পড়েছেন নিম্ন আয়ের দিনমজুর শ্রমজীবী মানুষরা। এই পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে খাবার বিতরণ করেছে ‘সৃষ্টির সেবা ফাউন্ডেশন’, পূর্বে যার নাম ছিলো ‘হেল্প ফর হিউম্যান ফাউন্ডেশন’।

রাজধানীতে গতকয়েকদিন ধরে সৃষ্টির সেবা ফাউন্ডেশনের কর্মীরা অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে খাবার বিতরণ করে আসছে। তার অংশ হিসেবে গতকাল রাত ১২টার দিকে তেজগাঁও এলাকায় অসহায়দের মাঝে ৪০০ প্যাকেট খাবার বিতরণ করে। এসময় তেজগাঁও পুলিশের কর্মকর্তারা তাদের সহযোগিতা করে।

সৃষ্টির সেবা ফাউন্ডেশনের জেনারেল সেক্রেটারি নওমুসলিম মুহাম্মদ রাজ ফেসবুকে লিখেন, আজ চতুর্থ দিন তেজগাঁও রাত ১২টা ৩০, ৪০০ প্যাকেট খাবার বিতরণ। খিদের জ্বালা আর পরিবারের দায়িত্ব, নিজের পেটের সাথে যখন বৌ – ছেলেমেয়ের পেটের দুশ্চিন্তা জুড়ে যায়, তখন সমাজের গরীব মানুষ গুলোর মন থেকে হাজার হাজার প্লেগ – করোনার ভয় দূর হয়ে যায়।

কবিতার একটি লাইন- ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়, পূর্ণিমা চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি। আসলে বিংশ শতাব্দীর অধিকাংশ বাঙালীরা ক্ষুধার সাথে খুব পিরিচিত, হয়তো তারা পূর্ণিমা চাঁদকে ঝলসানো রুটি মনে করে তার দিকে তাকিয়ে থাকতো। কিন্তু বর্তমানে বাঙালীদের পেক্ষাপট পরিবর্তন হয়েছে। এখন দেশ উন্নয়নের দিকে।

কিন্তু আজ ও হাজার হাজার বাঙালীর সন্তান যারা বস্তির অধিবাসী, টোকায়, দারিদ্রের কষাঘাতে জর্জরিত দুবেলা দুমুঠো খাবার জোগার করতে পারে না- তাদের কাছে ঝলসানো রুটিকে আকাশের পূর্ণিমা চাঁদের মতোই আরাধ্য লাগে। হয়তো তাদের উপলদ্ধিটা মনে করেই ক্লিকগুলো মেরেছিলাম।

ধন্যবাদ তেজগাঁও পুলিশ, পল্টন পুলিশের সব দায়িত্ববান অফিসারদের, কর্মীদের। তাদের সাহায্য ছাড়া আমাদের খাবার বিতরণ করা কখনই সুষ্ঠ ভাবে সম্ভব হতো না। কাল আমরা সৃষ্টির সেবা ফাউন্ডেশনের সদস্যরা থাকছি ৩০০/৩৫০ জন অসহায়দের খাবার নিয়ে কমলাপুর রেইলওয়ে ষ্টেশনে। দোয়া করবেন।

ফেসবুকে লাইক দিন