‘মুহাম্মদ সা. যুগে যুগে আসবেন’ : দেওয়ানবাগীর কথিত পীরের বিতর্কিত বক্তব্য

ইমান টোয়েন্টিফোর ডটকম: দেশের বহুল বিতর্কিত কথিত পীর দেওয়ানবাগীর একটি বিভ্রান্তিকর বক্তব্যের একটি ভিডিও ক্লিপ গতকাল থেকে ভাইরাল হয়েছে অনলাইনে। ভিডিও ক্লিপ নিয়ে ধর্মীয় ঘরানায় বেশ সমালোচনা এবং ক্ষোভের জন্মও হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, দেওয়ানবাগী দাবি করেছেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়া সাল্লাম তাঁর ইন্তেকালের পর থেকে যুগে যুগে বিভিন্ন ইমামের পৃষ্ঠে আরোহণ করে পৃথিবীতে আগমন করবেন। শেষ জমানায় ইমাম মাহদিরূপে তিনি আত্মপ্রকাশ করবেন।

দেওয়ানবাগী তার বিভ্রান্তিকর ওই বক্তব্যের শুরুতেই বলেন, ‘আজকে একটা প্যাঁচ লাগাইন্যা কথা বলমু। বুঝলে বুঝবেন, না বুঝলে নাই।’

তারপর তিনি একটি হাদিস বর্ণনাপূর্বক এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন, হুজুর সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়া সাল্লাম আদম থেকে শুরু করে সমস্ত নবী সমস্ত রাসুল উনাদের পৃষ্ঠ হয়া আসছেন, মক্কায় স্বরূপে বিকশিত হইসেন। তারপর মক্কা থেকে যখন পর্দা করলেন, রাসুলের বেশ-ভূষা পোষাক এখন তো আর নাই। তাই তিনি নিজেই ইমাম হিসাবে যুগে যুগে আসবেন। ইমাম হিসাবে যুগে যুগে এসে উম্মতকে নিদর্শন দেখাইবেন। তিনি ইমামের পৃষ্ঠ হয়ে এসে শেষ জমানায় ইমাম মাহদি রূপে আত্মপ্রকাশ করবেন। … হুজুরে পাক সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়া সাল্লাম ইমামদের পৃষ্ঠে আরোহণ করে জগতে তাশরিফ রাখতে থাকবেন। এ কারণে হুজুরের যে নুর, সিরাজাম মুনির, জ্বালানো বাতি, যুগে যিনি ইমাম থাকে, তার কাছে সেটা থাকে। নুরে হেদায়েত। উনি এসে যুগের পর যুগ মানুষকে হেদায়েত করবে। পরিস্কার?’

তিনি বলেন, ‘সর্বশেষে উনারা যত মানুষকে রিক্রট কইরা মুসলমান বানাইছে, ইমামগণ মুসলমান বানাইছে, শেষ জমানায় রাসুল নিজে ইমাম মাহদি রূপে এসে সবাইকে তার দলভূক্ত করে নেবেন। পরিস্কার?’

তারপর তিনি বলেন, রাসুলের কাছে যেতে হলে আমাদেরকে যেতে হবে ইমামদের কাছে, ওলি-আল্লাদের কাছে। আপনি হাদিসের কিতাব পড়ে দেখেন, হাদিসের ভেতর রাসুলরে বিছরায়া (খুঁজে) পান কি না। হাদিস তো রাসুলের বানী। পড়েন সিহা সিত্তার হাদিস, দেখেন এর ভেতর রাসুল আছেন কিনা। কুরআন তো আল্লার বাণী, কুরআন খতম করেন, বিছরায়া দেখেন, আল্লার সাথে সাক্ষাত হয় কি না। (পাবেন না।)। আল্লার সাথে সাক্ষাৎ হইতে হইলে যিনি আল্লার পরিচয় লাভ করেছেন তার কাছে যেতে হবে। যিনি রাসুলের পরিচয় জানেন তার কাছে যেতে হবে। তার কাছে না যাওয়া পর্যন্ত আল্লার পরিচয়, রাসুলের পরিচয় পাওয়ার সম্ভাবনা নাই। পরিস্কার?’

দেওয়ানবাগীর এ বক্তব্যকে অনলাইন অ্যক্টিভিস্টরা বিভ্রান্তিকর বলে সমালোচনা করছেন। তারা বলছেন, ধর্মকে অপব্যবহার এবং কুরআন-হাদিসের ভুল ব্যাখ্যা মানুষের সামনে উপস্থাপন করে দেওয়ানবাগী সাধারণ মুসলমানদেরকে বিভ্রান্ত করে চলেছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন