যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ অব্যাহত, যোগ দিচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও

ইমান২৪.কম: গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর নির্মমতার বিরুদ্ধে অন্যান্য দেশের মতো যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। প্রতিবাদে ফেটে পড়েন ক্যালিফোর্নিয়াবাসী। অন্যান্য অঙ্গরাজ্যেও ফিলিস্তিনের সমর্থনে তুমুল বিক্ষোভ হয়েছে।

এতে যোগ দিচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও। ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর চলমান বিমান হামলার প্রতিবাদে ক্যালিফোর্নিয়ার লস এঞ্জেলেসে বিক্ষোভ করেন শত শত মানুষ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরায়েলের পক্ষে কথা বললেও তার দেশের মানুষ ফিলিস্তিনের সমর্থনেই আওয়াজ তুলেছে।

বাংলাদেশিরাও বিক্ষোভের সমর্থন দিয়েছেন। তারাও আরও বড় পরিসরে সমাবেশ করার কথা ভাবছেন। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য অঙ্গরাজ্যেও ফিলিস্তিনিদের অধিকারের পক্ষে রাস্তায় নামে হাজার হাজার মানুষ। ওয়াশিংটনে হয়েছে ইসরায়েলি দূতাবাস ঘেরাও। সবখানেই বিক্ষোভকারীদের হাতে দেখা গেছে ফিলিস্তিনের পতাকা।

অনেকে ব্যানার, প্ল্যাকার্ড হাতেও বিক্ষোভে নামেন। এর আগে গত শনিবার ফিলাডেলফিয়া, ডালাস ও নিউ ইয়র্কেও বিক্ষোভ হয়। যুক্তরাষ্ট্রের মতো উত্তাল বিশ্বের অনান্য দেশও। চিলি, জর্দান, লিবিয়া, লেবাননসহ আরও বেশ কয়েকটি দেশে এমন বিক্ষোভ হয়েছে। এদিকে ইসরায়েলি বিমান হামলায় গাজায় এ পর্যন্ত ৫২ হাজারের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ৪৫০ ভবন। মঙ্গলবার (১৮ মে) ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের সংঘাতে সৃষ্ট এ চিত্র তুলে ধরেছে জাতিসংঘ। স্থানীয় সময় বুধবার (১৯ মে) সকাল পর্যন্ত গাজায় ২২০ নিহতদের মধ্যে রয়েছে ৬৫ জনই শিশু। দুদিন আগে ‍শিশুসংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, গাজায় প্রতি ঘণ্টায় তিন শিশু হতাহত হচ্ছে। ইসরায়েলের দখলদারিত্বকে কেন্দ্র করে বেশ কিছুদিন ধরেই বিক্ষোভ চলছিল জেরুজালেমে।

বুধবার (১৯ মে) সকালেও ইসরায়েলি বিমান থেকে মধ্যগাজার একটি আবাসিক ভবন লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালানো হয়। এতে অন্তত তিনজন নিহত হন। গত রোববার (৯ মে) লাইলাতুল কদরের রাতে আল-আকসায় নামাজ আদায় শেষে ফিলিস্তিনিরা বিক্ষোভ শুরু করলে তা যুদ্ধে রূপ নেয়, যা এখনও চলছে।

ফেসবুকে লাইক দিন