মামুনুল হককে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যেতে বাধা দেওয়ায় মহাসড়ক অবরোধ

ইমান২৪.কম: হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব ও খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগে মঙ্গলবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। এতে মধ্যরাতে মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশি হস্তক্ষেপে রাত সাড়ে ১২টার দিকে মাওলানা মামুনুল হক পৌর এলাকার ভাদুঘর বড় হুজুরের মাহফিলে আসার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ভাদুঘরে জামিয়া সিরাজিয়া দারুল উলুম মাদ্রাসায় ৩৪তম বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল চলছিল। এতে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবু নগরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল।

তবে তিনি অসুস্থ থাকায় হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব ও খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক এ আয়োজনে যোগ দিতে ভৈরবে একটি ওয়াজ মাহফিল শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভাদুঘরের মাহফিলে আসছিলেন।

পরে রাত ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন মাদ্রাসার ছাত্রদের কাছে খবর আসে, আল্লামা মামুনুল হককে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসতে আশুগঞ্জ টোল-প্লাজার পুলিশ বাধা দিয়েছে। এই খবরে তারা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। আন্দোলন চলাকালে একপর্যায়ে আল্লামা মামুনুল হক রাত সাড়ে ১২টার দিকে কাউতলী মোড়ে আসেন। পরে মাদ্রাসার ছাত্ররা মিছিল করে তাকে মাহফিলে নিয়ে যায়।

হেফাজতে ইসলামের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার নায়েবে আমির মাওলানা সাজিদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, আল্লামা মামুনুল হককে আসতে বাধা দেওয়া হয়েছে। এমন খবর পেয়ে মাদ্রাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ করেছে। এমন পরিস্থিতিতে মামুনুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাহফিলে যোগ দেওয়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আনিছুর রহমান জানান, মামুনুল হককে আসতে বাধা দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের গুজব ছড়ানো হয়েছিল। এতে মাদ্রাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ করে। মামুনুল হককে আসতে কোনো প্রকার বাধা দেওয়া হয়নি। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাহফিলে এসেছেন। জনগণের নিরাপত্তা স্বার্থে কাউতলী মোড়সহ ভাদুঘর মাহফিল এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মাওলানা মামুনুল হক মাহফিলে বক্তব্য দিয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন