ইফতারের জন্য ‘১ ঘণ্টার ছুটি’ চেয়েছিলো বিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিকরা

ইমান২৪.কম: চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে এস আলম গ্রুপের নির্মাণাধীন বিদ্যুৎকেন্দ্রে একটি চীনা ঠিকাদার কোম্পানির অধীনে তিন ঘণ্টার ওভার টাইমসহ দৈনিক ১২ ঘণ্টা কাজ করে আসা অস্থায়ী শ্রমিকরা রোজা শুরুর পর থেকে ইফতারের সময় এক ঘণ্টা ছুটির দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন।

আন্দোলনরত শ্রমিক ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বকেয়া বেতন ও ইফতারের ছুটি নিশ্চিত করতে কয়েকদিন ধরে আন্দোলন করছিলেন শ্রমিকরা।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মিছিল নিয়ে চীনা কোম্পানি সেপকো থ্রির সাইট অফিসে যাওয়ার পথে পুলিশের গুলিতে পাঁচজন শ্রমিক নিহত হন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী প্রকল্পের এক শ্রমিক বলেন, এই প্রকল্পের শ্রমিকরা সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত কাজ করে থাকেন। রোজা শুরু হওয়ার আগ থেকেই শ্রমিকরা ইফতারের জন্য এক ঘণ্টার বিরতি চেয়ে আসছিলেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তা মঞ্জুর করেনি। “এছাড়া প্রতিমাসের ১০ তারিখের মধ্যে শ্রমিকরা আগের মাসের বেতন চেয়ে আসলেও বেতন পরিশোধে ২০ তারিখেরও বেশি সময় পার হয়ে যাচ্ছিল। ”

শরিফ হোসেন নামের আরেকজন শ্রমিক বলেন, “প্রকল্পের অধিকাংশ শ্রমিকই রোজা রাখছেন। সে কারণে ইফতারের আগে একঘণ্টার ছুটির কথা আমরা বার বার বলে আসছিলাম। সেই ছুটি মূল নয় ঘণ্টা থেকে কেটে রাখার প্রস্তাব দিয়েছিলেন শ্রমিকরা। তা সম্ভব না হলে ইফতারের পর কাজ করে পুষিয়ে দেওয়ার প্রস্তাবও ছিল।

“কিন্তু চীনা মালিকপক্ষ কোনোটাই মানছিল না। বাংলাদেশি কন্ট্রাকটররাও ঠিক সময়ে বেতন দিচ্ছিল না। তারা এই ক্ষেত্রে চীনা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে টাকা সময় মতো না পাওয়ার আজুহাত দিচ্ছিল।”

এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সাইট ম্যানেজার উজ্জ্বল মোল্যা বলেন, “ইফতারের সময় নিয়ে শ্রমিকরা যেই দাবি জানিয়েছিল তা একেবারেই যৌক্তিক। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইফতারের আগে ছুটি দেওয়া অবশ্যই প্রয়োজন ছিল। আমরাও চীনা লোকজনকে বুঝাচ্ছিলাম। তারা অনুমোদন না দিলে তো আমরা সেটা করতে পারি না।”

ফেসবুকে লাইক দিন