মসজিদ বন্ধ: জুমা পড়তে পারেননি হাজারো মুসল্লি

ইমান২৪.কম: বৃটেনে করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করায় বন্ধ করা হয়েছে ইউরোপের বৃহত্তম বেশ কয়েকটি মসজিদ। সরকারের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও কর্তৃপক্ষ এমন সিন্ধান্ত নেয়ার ফলে শুক্রবার নামাজ পড়তে পারেননি হাজার হাজার মুসল্লি।

যে কয়েকটি মসজিদ খোলা রয়েছে, তা যেকোন সময় বন্ধ হতে পারে। নামায পড়তে না পারা বিখ্যাত কয়েকটি মসজিদ হচ্ছে, ইষ্ট লন্ডন মসজিদ, হযরত ইব্রাহিম মসজিদ, বিশপ ওয়াই মসজিদ, দারুল উম্মাহ মসজিদ, শেডওয়েল মসজিদ, গ্রানফিল মসজিদ ও রেড ব্রিজ।

গত মঙ্গলবার বার্কিং অ্যান্ড ডাগেন হাম, নিউহাম, হ্যাকনি, রেডব্রিজ কাউন্সিলসহ বেশ কয়েকটি কাউন্সিল অফিস তাদের সদর দপ্তরে ধর্মীয় নেতাদের চিঠি দেয়। টাওয়ার হ্যামলেটস, নিউহামসহ বেশ কয়েকটি মসজিদ এই আহবানে সাড়া দেয়। ইউরোপের বৃহত্তম ইষ্ট লন্ডন মসজিদটি বন্ধ করার জন্য রাজি হয়।

যে মসজিদটিতে ৭ হাজারেরও বেশি মুসল্লি এক সাথে নামাজ আদায় করতে পারেন। মসজিদ কর্তৃপক্ষ বিবৃতিতে বলেছে, সরকারের উপাসনালয়গুলি উন্মুক্ত থাকার অনুমতি সত্ত্বেও স্থানীয়ভাবে কোভিড-১৯ এর উচ্চ পর্যায়ের কারণে ইস্ট লন্ডন মসজিদটি বন্ধের কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে।

তবে সিদ্ধান্তটি দুই সপ্তাহের মধ্যে পর্যালোচনা করা হবে এবং অনলাইন পরিষেবাগুলি সম্প্রচারিত হবে। তবে জানাজাগুলি যথা নিয়মে অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে লন্ডনে করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেইনের সংক্রমণের কারণে হাসপাতালগুলোতে পরিস্থিতি ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে’ চলে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

লন্ডনের মেয়র সাদিক খান বলেন, ‘ভাইরাসের বিস্তার “নিয়ন্ত্রণের বাইরে” চলে যাওয়ায়, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে রাজধানীর হাসপাতালগুলোর সবগুলো শয্যা রোগীতে পূর্ণ হয়ে যাবে।’ ‘আমরা একে বড় ঘটনা বলছি, কারণ ভাইরাসটির কারণে শহরজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

এটা এখন একটা সঙ্কট,’ বলেন তিনি। লন্ডনের মোট জনসংখ্যা ৯০ লাখের বেশি। মেয়র বলেন, ‘লন্ডনের কিছু কিছু এলাকায় প্রতি ২০ জনে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের ওপর চাপ বাড়ছে। প্রতিদিন নয় হাজারেরও বেশি জরুরি কল আসছে।’

ফেসবুকে লাইক দিন