ভারত কখনোই বাংলাদেশের উপকার করেনি -মির্জা ফখরুল

ইমান২৪.কম: ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের বাংলাদেশ সফর নিয়ে আশাবাদী হওয়ার কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গত সোমবার (১৯ আগস্ট) স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে জিয়ার মাজারে শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

পার্শ্ববর্তী ভারত কখনোই বাংলাদেশের কোনো উপকারে আসেনি বলে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ভারত আমাদের থেকে সবসময় উপকার পেয়েছে কিন্তু কখনও কোনো উপকার করেনি।

তিনি বলেন, ‘এই সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। একটা অনির্বাচিত সরকার কখনই দেশ চালাতে পারে না। তারা অবৈধ। জনগণের কোনো ম্যান্ডেট তাদের প্রতি নেই। পার্লামেন্ট বলুন আর সরকার বলুন- এখানে জনগণের কোনো প্রতিনিধিত্ব নেই।’

অনির্বাচিত সরকার বলেই চামড়া নিয়ে মন্ত্রীরা অর্বাচীনের মতো কথা বলছে বলেও মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সুপরিকল্পিতভাবে অর্থনীতি ধ্বংস করে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করছে সরকার।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যায় বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান নন বরং আওয়ামী লীগের লোকজনই জড়িত বলেও দাবি করেছেন মির্জা ফখরুল।

তিনি আরও বলেন, জাতির জনকের হত্যায় আওয়ামী লীগের লোকই জড়িত ছিল। যারা পরবর্তীতে সরকার গঠন করেছিলো।

এর আগে জিয়াউর রহমানকে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী বলে দাবি করেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, সাম্রাজ্যবাদী শক্তির ইন্ধনে (তৎকালীন সেনা কর্মকর্তা) জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়। পরে সেই অশুভ শক্তি জিয়াউর রহমানকে ক্ষমতায় নিয়ে আসে। তার এই মন্তব্যের পাল্টা জবাবে এ কথা জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব।

সরকার বিচার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করছে বলে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল।

আরো পড়ুন: আবারও মালয়েশিয়ার আরেক রাজ্যে জাকির নায়েকের ভাষণে নিষেধাজ্ঞা

বিতর্কিত ধর্ম প্রচারক জাকির নায়েককে মালয়েশিয়ায় দেয়া স্থায়ী নাগরিকত্ব মর্যাদা বাতিল করা হতে পারে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ শুক্রবার এই কথা বলেন।

মাহাথির বলেন, দেশের সংখ্যালঘুদের নিয়ে জাকির নায়েক যে মন্তব্য করেছেন তার তদন্ত করছে পুলিশ। তদন্তের ফলাফল আসলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, তাঁর স্থায়ী নাগরিকত্ব মর্যাদা আছে। আমরা তা কেড়ে নিতে পারি যদি তিনি এমন কিছু করেন যা এই জাতির ক্ষতিকারক। এই মুহূর্তে পুলিশ তদন্ত করছে। তিনি যদি এমন কিছু করেন তাহলে তাঁর স্থায়ী নাগরিকত্ব মর্যাদা কেড়ে নেয়া দরকার।

গত সপ্তাহে চীনা ও ভারতীয় সংখ্যালঘুদের নিয়ে বর্ণবাদী বক্তব্য দেয়ার অভিযোগ ওঠে জাকিরের বিরুদ্ধে।

ইতিমধ্যে মালয়েশিয়ায় একটি ইসলামি অনুষ্ঠানে বিতর্কিত ধর্ম প্রচারক জাকির নায়েককে ভাষণ দেওয়া থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দিয়েছে দেশটির পুলিশ।

মালয়েশিয়ার সিনিয়র এক পুলিশ কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরার খবরে বলা হয়ছে, পার্লিসে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের তিন দিনব্যাপী এক ইসলামী সম্মেলনে জাকির নায়েককে ভাষণ না দেয়ার জন্য পুলিশ নিষেধ করেছে।

এই অনুষ্ঠানটি মালয়েশিয়ায় ধর্মান্তরিত মুসলিমদের সবচেয়ে বড় সমাবেশ। তথ্যসূত্র: মালয় মেইল, আল জাজিরা, হিন্দুস্তান টাইমস, টাইমস অব ইন্ডিয়া।

iman24/t/h

ফেসবুকে লাইক দিন