ভারতজুড়ে মুসলমান ও কাশ্মীরিদের ওপর হামলায় জাতিসংঘের উদ্বেগ

ইমান২৪.কম: কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর ভারতজুড়ে মুসলমান ও কাশ্মীরিদের ওপর হামলার ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট। একই সঙ্গে কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনারও নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। খবর বার্তা সংস্থা আনাদোলু’র।

মিশেল ব্যাচেলেট বলেন, মুসলমান ও কাশ্মীরিদের ওপর সহিংসতা এবং হুমকিকে বৈধ করতে পুলওয়ামা হামলার কিছু বিষয়কে ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে আমরা উদ্বিগ্ন।

তিনি বলেন, এ ধরনের হামলার ঘটনা মোকাবেলায় ভারতীয় কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপ সম্পর্কে আমরা অবগত আছি। তবে আশা করছি, সব ধরনের ক্ষয়ক্ষতি থেকে মানুষকে সুরক্ষা দিতে সরকার পদক্ষেপ নেবে।

গেল বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) কাশ্মীরের পুলওয়ামার অবন্তীপুরায় ভারতের কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর (সিআরপিএফ) কনভয়ে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলায় প্রায় ৪৪ জওয়ান নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৪০ জনেরও বেশি।

এরপর থেকে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে। হামলায় পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা ছিলো বলে দাবি করেছে ভারত। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইসলামাবাদ।

হামলার মহড়া দিতে গিয়ে ভারতের দুই বিমান ধংস

হামলার মহড়া দিতে গিয়ে ভারতের দুই বিমান ধংস

মহড়া চলাকালে সংঘর্ষের পর জনবসতিপূর্ণ এলাকায় ভেঙে পড়লো ভারতীয় বিমান বাহিনীর দু’টি যুদ্ধবিমান। মঙ্গলবার সকালে বেঙ্গালুরুর ইয়েলাহাঙ্কা বিমান ঘাঁটিতে ঘটনাটি ঘটেছে। দু’টি বিমানে তিন পাইলট ছিলেন। দুই পাইলট অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও আর এক পাইলটের মৃত্যু হয়েছে। পিটিআই, আনন্দবাজার।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানায়, ফেব্রুয়ারির ২০-২৪ তারিখে বেঙ্গালুরুতে শত্রুর লক্ষবস্তুতে হামলার মহড়া দেখানোর কথা ছিলো বিমান দুটির। তার আগে এ দিন নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছিল পাইলটরা। মহড়া শুরু হওয়ার কিছু ক্ষণের মধ্যেই হঠাৎ দেখা যায় দু’টি যুদ্ধবিমান ঘুরপাক খেতে খেতে নীচের দিকে নেমে আসছে। তার পর কুণ্ডলী পাকিয়ে আগুন আর কালো ধোঁয়া উঠতে দেখা যায়।

ভারতীয় বিমানবাহিনী জানিয়েছে, মহড়া চলাকালীন হঠাৎই ওই দু’টি বিমানের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। দমকলের বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

১৯৯৬ থেকে এই এয়ার শো হয়ে আসছে বেঙ্গালুরুতে। শেষ এয়ার শো হয়েছিল ২০১৭-র ফেব্রুয়ারিতে। এ বছরেও এয়ার শো-এর আয়োজন হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বড় বড় ব্যবসায়ী এবং সেই সব দেশের প্রতিনিধিরা এই এয়ার শো দেখতে হাজির হন। ২০১৭-র এয়ার শো-তে অংশ নিয়েছিল ৭২টি যুদ্ধবিমান। এ বছরে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে ৬১টি যুদ্ধবিমানের।

আরও পড়ুন:  হামলার মহড়া দিতে গিয়ে ভারতের দুই বিমান ধংস

চুপ করে বসে থাকবো না, পাল্টা হামলা চালাব: ইমরান খান

হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?

ভারত-পাকিস্তান সিমান্ত রণসাজে সজ্জিত, ৬০০ ট্যাংক পাঠালো পাকিস্তান

আবারও ব্যাপক সংঘর্ষ কাশ্মীরে, ভারতীয় বাহিনীর মেজর-সহ নিহত ৫

জাপানি নারীর ইসলাম গ্রহণের হৃদয়বিধারক ঘটনা ও পর্দার প্রতি সন্মান

ফেসবুকে লাইক দিন