বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত

ইমান২৪.কম: দাওয়াত ও তাবলীগের শীর্ষ মুরুব্বি কাকরাইল তাবলীগ মসজিদের জিম্মাদার মাওলানা জুবায়ের আহমেদ সাক্ষরিত বিশ্ব ইজতেমা বিষয়ক নতুন একটি নির্দেশনা প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে বিশ্ব ইজতেমার তারিখ ও খিত্তার জিম্মাদার সহ আরো কিছু বিষয়ে নতুন করে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত নির্দেশনায় বলা হয়েছে,

সরকারের প্রস্তাবনা অনুযায়ী উভয়পক্ষের একসাথে তিন দিনের ইজতেমা করার চাইতে তাবলীগের বিবাদমান দুই পক্ষের আলাদা আলাদা ইজতেমা করা উত্তম মনে করায় কাকরাইলের আহলে শুরা হযরতগন ও শীর্ষ স্থানীয় ওলামা কেরাম একমত হয়েছেন যে আগামী ১৪, ১৫, ১৬ ই ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতি শুক্র ও শনিবার ওলামায়ে কেরাম ও সাধারণ তাবলীগীদের বিশ্ব ইজতেমা সম্পূর্ণ আলাদা ভাবে অনুষ্ঠিত হবে এবং এই নির্দেশনা সাদপন্থীদের ইজতেমার বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

সাথে সাথে প্রত্যেক জেলা ইউনিয়ন থেকে বেশি বেশি করে লোকজন উপস্থিত করার ব্যাপারেও অনুরোধ করা হয়েছে উক্ত নির্দেশনায়। এবং আজ শুক্রবার দেশের বিভিন্ন মসজিদে মসজিদে ইজতেমার উপরোল্লেখিত তিন দিনের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন একাধিক মসজিদের মুসল্লী ও ইমামগণ।

তবে এ নির্দেশনা সরকারি নির্দেশনার সাথে কিছুটা সাংঘর্ষিক কারণ সরকারের নির্দেশনায় বলা হয়েছে ইজতেমা দুই দিন দুই দিন হবে সে ক্ষেত্রে মাওলানা জুবায়ের অংশের ইজতেমার তারিখ ছিল ১৫, ১৬ ফেব্রুয়ারি কিন্তু এখানে মাওলানা জুবায়ের অংশের ইজতেমার তারিখ একদিন বাড়িয়ে ১৪ তারিখ থেকে করে তিন দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে এ নির্দেশনার ব্যাপারে দুই দিন পার হয়ে গেলেও সরকারি বা সা’দপন্থীদের কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

মাওলানা জুবায়ের অংশের ইজতেমার সময় খিত্তার জিম্মাদার থাকবেন যারা

গতকাল (৭ ফেব্রুয়ারি) প্রকাশিত মাওলানা জুবায়ের অংশের ইজতেমার খিত্তার জিম্মাদারদের একটি তালিকা প্রকাশিত হয়েছে যেখানে ঢাকা জেলা বাদে বাকি ৬৩ জেলার জিম্মাদারদের নাম প্রকাশ করা হয়েছে।

তালিকায় যারা রয়েছেন :

ঢাকা, (নাম দেয়া হয়নি) মানিকগঞ্জ, মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ। গাজীপুর, প্রফেসর মোঃ নুরুজ্জামান। নরসিংদী, মাওলানা আবুল হাসেম। মুন্সিগঞ্জ, মোহাম্মদ জাহিদ হাসান। নারায়ণগঞ্জ, হাজী হোযাইফা। টাঙ্গাইল, আব্দুল হাই। ফরিদপুর, মোহাম্মদ আবুল কাশেম। মাদারীপুর, হাফেজ আব্দুল জলিল। রাজবাড়ী, মাওলানা এমদাদ উল্লাহ। শরীয়তপুর, তোফাজ্জল হোসেন। গোপালগঞ্জ, ডাক্তার মাহফুজুর রহমান।

ময়মনসিংহ, হাফিজ উদ্দিন। নেত্রকোনা, মাস্টার আব্দুস সাত্তার। কিশোরগঞ্জ, আব্দুল্লাহ আল ফারুক। জামালপুর, মুফতি আব্দুল্লাহ। শেরপুর, মাসুম বিল্লাহ।

চট্টগ্রাম, মুফতি জসিম উদ্দিন। কক্সবাজার, মাওলানা আতাউল করিম। রাঙ্গামাটি, হারুন খান। বান্দরবান, মাওলানা কালীম উল্লাহ। খাগড়াছড়ি, মাওলানা মাঈনুদ্দিন। নোয়াখালী, গোলামুর রহমান। ফেনী, হাজী আব্দুস সালাম। লক্ষ্মীপুর, প্রফেসর আলী মোরশেদ। কুমিল্লা, মাওলানা মফিজুল ইসলাম। বি-বাড়িয়া, হাজী সেলিম। চাঁদপুর, মাওলানা এমদাদ উল্লাহ।

সিলেট, সৈয়দ ইবরাহিম। সুনামগঞ্জ, মাওলানা খলিলুর রহমান। হবিগঞ্জ, প্রফেসর সৈয়দ মহসিন। মৌলভীবাজার, মুফতি সিরাজ।

রাজশাহী, হাজী আব্দুল মালেক। নাটোর, হাজী আব্দুল আলিম। নওগাঁ, হাজী আব্দুল খালেক। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মোহাম্মদ মশিউর রহমান। বগুড়া, মশিউর রহমান। জয়পুরহাট, হারুনুর রশিদ। পাবনা, হাসান জাহিদ। সিরাজগঞ্জ, মাওলানা রেজাউল করিম।

দিনাজপুর, প্রিন্সিপাল ওয়াজিবুল। ঠাকুরগাঁও, বদ্রুজ্জামান। পঞ্চগড়, মোখলেসুর রহমান। রংপুর, মাওলানা ইসমাইল। কুড়িগ্রাম, মো. ফরিদ। লালমনিরহাট, মাওলানা তারেক। নীলফামারী, মাওলানা আনিস। গাইবান্ধা, মাওলানা আশরাফ আলী।

খুলনা, হাজী মোহাম্মদ তারেক। সাতক্ষীরা, আলহাজ্ব আবুল ইফতেখার। বাগেরহাট, মাওলানা ফয়জুল ইসলাম। যশোর, হাজী লোকমান। নড়াইল, মাওলানা মশিউর। ঝিনাইদহ, মাওলানা মাহমুদুল্লাহ। মাগুরা, আব্দুল মুক্তাদির। কুষ্টিয়া, হাজী আজিম উদ্দিন। মেহেরপুর, মাওলানা মাহবুব হোসেন। চুয়াডাঙ্গা, আইনুল হক।

বরিশাল, মুফতি নুরুল্লাহ। ঝালকাঠি, মোহাম্মদ মোস্তফা খান। পিরোজপুর, মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান। ভোলা, হাজী তৈয়বুর রহমান। পটুয়াখালী, মাওলানা রুহুল আমিন। বরগুনা, মো. আব্দুল করিম।

এছাড়াও মাওলানা জুবায়ের অংশের ইজতেমার সময় ম্যাপ এবং মাঠের অবস্থানের নির্দেশনাও প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত : দীর্ঘদিন ধরেই তাবলীগের মধ্যে দুই পক্ষের বিবদমান পরিস্থিতি চলছে। এক পক্ষ অন্য পক্ষকে কোন বিষয়ে ছাড় দিতে রাজি হচ্ছে না। পরবর্তিতে সরকারি হস্তক্ষেপে তাবলীগের মধ্যকার সমস্যা সমাধানের দীর্ঘ প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে। যে ধারাবাহিকতায় গত ২৪ জানুয়ারি একটি সিদ্ধান্ত এসেছিল উভয়পক্ষ একই সাথে একই সময়ে বিশ্ব ইজতেমা সম্পন্ন করবে মর্মে।

কিন্তু মাও. সাদপন্থীরা নিরাপত্তা অজুহাত দেখিয়ে বিশ্ব ইজতেমায় উপস্থিত হতে অপারগতা প্রকাশ করে, যে কারণে উভয় পক্ষকে নিয়ে আবার বৈঠক করতে হয়েছে সে ধারাবাহিকতায় গত ৫ ফেব্রুয়ারি সিদ্ধান্ত এসেছে বিশ্ব ইজতেমা তিন দিনের পরিবর্তে চার দিনে হবে এবং উভয় পক্ষ দুইদিন দুইদিন করে সময় পাবে কিন্তু মাওলানা জুবায়ের স্বাক্ষরিত এ নির্দেশনা তাদের ইজতেমা একদিন বাড়িয়ে তিন দিন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:  কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিল ঐক্যফ্রন্ট

এখন বিজ্ঞাপন দিয়েও কাজের মানুষ পাওয়া যায় না: সমাজকল্যাণমন্ত্রী

০১৫৩৭-৭০৭০৭০ নম্বরে সার্বক্ষণিক পাওয়া যাবে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে

দুর্নীতিবাজ রাঘব বোয়ালদের ছেড়ে শিক্ষকদের নিয়ে ব্যস্ত দুদক: হাইকোর্ট

বিনা টিকেটে ঢুকতে না দেয়ায় পুলিশের স্টলে ছাত্রলীগের ভাংচুর-লুটপাট

এখন থেকেপুলিশের বিরুদ্ধেও অভিযোগ করা যাবে সরাসরি, খোলা হয়েছে কমপ্লেইন সেল

ফেসবুকে লাইক দিন