বিশ্বের তৃতীয় পারমাণবিক অস্ত্র মজুতকারী দেশ হতে যাচ্ছে পাকিস্তান

ইমান২৪.কম: বিশ্বের তৃতীয় পারমানবিক শক্তিধর দেশ পাকিস্তান! বিশ্বের তৃতীয় পারমাণবিক অস্ত্র মজুতকারী দেশ হতে যাচ্ছে পাকিস্তান। এমনই অভিমত দিয়েছেন সামরিক বিশেষজ্ঞ জোসেফ ভি মিকালেফ। ওয়াশিংটনভিত্তিক সামরিক ওয়েবসাইট মিলিটারিডটকমে প্রকাশিত এক নিবন্ধে জোসেফ ভি মিকালেফ দাবি করেন, পারমাণবিক অস্ত্র মজুতের পাশাপাশি স্বল্পপাল্লার (৫ থেকে ১০ কিলোমিটার) যুদ্ধাস্ত্র মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান। তবে পাকিস্তানের এসব নীতির কারণে ভবিষ্যতে দক্ষিণ এশিয়ার স্থিতিশীলতা হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন এই বিশেষজ্ঞ।

এতে পাকিস্তানসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের সশস্ত্র ইসলামি সংগঠনগুলোর হাতে পারমাণবিক অস্ত্র পৌঁছে যেতে পারে বলে প্রকাশিত নিবন্ধে শঙ্কা জানিয়েছেন তিনি। বৈশ্বিক সম্পর্ক বিষয়ে লেখার কারণে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি পেয়েছেন জোসেফ ভি মিকালেফ। এছাড়া সামরিক ইতিহাস বিষয়েও তিনি একজন বিশেষজ্ঞ। ম্যাসাচুসেটই ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) সাবেক এই গ্রাজুয়েট এই বিষয়ে অনেক বই লিখেছেন। জোসেফ ভি মিকালেফ নির্মাণ করেছে কয়েকটি ডকুমেন্টারি।

মিলিটারিডটকমে এক নিবন্ধে তিনি লিখেছেন, আফগান তালেবান, তেহরিক-ই-জিহাদ ইসলামি, জয়েশ-ই মোহাম্মদ, লস্কর-ই তাইয়্যেবা অথবা হিজবুল মুজাহিদিনের মতো সশস্ত্র জিহাদি গ্রুপগুলোর সঙ্গে পাকিস্তানের অতীত সম্পর্ক ভারত-পাকিস্তান সংঘর্ষে নতুন উপাদান যোগ করেছে। তিনি বলেন, আমেরিকা-পাকিস্তানের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের টানাপড়েন সৃষ্টিতে ভূমিকা রেখেছে এসব সশস্ত্র গোষ্ঠী। পাকিস্তান পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি অব্যাহত রেখেছে জানিয়ে মিকালেফ বলেন, এটাই তাকে সবচেয়ে বেশি উদ্বিগ্ন করেছে।

গোপনে আর অবৈধভাবে গত ৪৮ বছর ধরে পাকিস্তান এই কাজ করছে জানিয়ে তিনি বলেন, ১৯৭১ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে ইসলামাবাদ নিজেদের পারমাণবিক অস্ত্রের উন্নতি ঘটিয়েছে। প্লুটোনিয়াম ও ইউরেনিয়ামভিত্তিক অস্ত্র এর মধ্যে রয়েছে বলেও জানান তিনি। মিকালেফের ধারণা, পাকিস্তানের চারটি প্লুটোনিয়াম উৎপাদন রি-এক্টর ও তিনটি প্লুটোনিয়াম পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের প্লান্ট রয়েছে। এছাড়া দেশটি গ্যাসভিত্তিক ইউরেনিয়াম ব্যবহার করে উচ্চমাত্রার ইউরেনিয়াম উৎপাদন করে বলে তিনি মনে করেন।

সংবাদ মাধ্যমের অসমর্থিত খবরের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ২০১৪ সালে ইসলামিক স্টেটের সদস্যরা পাকিস্তানের পারমাণবিক অস্ত্রের নিরাপত্তা সহায়তা দেওয়ার কাজ পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। বিভিন্ন গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে মিকালেফ লিখেছেন, বর্তমানে দেশটির কাছে ১৪০ থেকে ১৫০টি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে। কিন্তু ধারণা করা হয় দেশটির কাছে ৩ থেকে ৪ হাজার কিলোগ্রাম ইউরেনিয়াম ও দুইশ’ থেকে তিনশ’ গ্রাম প্লুটোনিয়াম রয়েছে।

এসব উপাদান ব্যবহার করে আরও দুই থেকে আড়াইশ’টি অস্ত্র তৈরি সম্ভব বলেও জানান তিনি। উল্লেখ্য, পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ে প্রচারণা চালানো অলাভজনক সংস্থা প্লাউশেয়ারস-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে রাশিয়ার (৬,৬০০টি)। এরপর আমেরিকার ৬ হাজার ৪৫০টি, ফ্রান্সের ৩০০টি, চীনের ২৭০টি, যুক্তরাজ্যের ২১৫টি, পাকিস্তানের ১৩০টি, ভারতের ১২০টি ও উত্তর কোরিয়ার রয়েছে ১৫টি পারমাণবিক অস্ত্র।

আরও সংবাদঃ কোটা নিয়ে প্রজ্ঞাপনের দাবিতে রাবিতে আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ

৮৯ বছর ধরে ১ মিনিটের জন্যও তেলাওয়াত বন্ধ হয়নি এই মসজিদে

 

ফেসবুকে লাইক দিন