ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশিরা প্রায়ই হামলার শিকার হচ্ছেন।

ইমান২৪.কম: ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশিরা প্রায়ই হামলার শিকার হচ্ছেন। এমনকি রাজধানী প্যারিসেও দিনে-দুপুরে ঘটছে চুরি, ডাকাতির মতো ঘটনা। যার কারণে আতঙ্কের সঙ্গে দিন কাটাচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। প্যারিসের সেইন্ট ডেনিসস্থা, ক্যাথসিমা অভারভিলাসহ আরো কয়েকটি স্থানে এই অপরাধের মাত্রা তুলনামূলক বেশী। ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশিরা দীর্ঘদিন থেকেই চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতিসহ নানাভাবে হামলার শিকার হচ্ছেন।

আফ্রিকান এবং আরব বংশোদ্ভূতরাই এ ধরণের অপরাধের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি কাজ থেকে ফেরার পথে ছিনতাইকারীদের হামলার শিকার হন সাংবাদিক আবুল কালাম মামুন। এতে তার একটি পা ভেঙ্গে যায়। হামলার শিকার সাংবাদিক আবুল কালাম মামুন বলেন, ‘ছয়টা মেটেল নিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে হাঁটছি দীর্ঘদিন যাবৎ। আমি এই বিষয়ে প্রশাসনকে জানিয়েছি কাজের কাজ কিছু হয়নি।’ একজন বাংলাদেশি নারী বলেন, ‘যখন আমাদের স্বামীরা কাজে কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যায় তখনই বাসায় চুরি ডাকাতি হয়।

শুধু আমার বাসায় নয় আরো অনেক বাসায় এমন চুরির ঘটনা ঘটেছে।’ কমিউনিটি নেতারা বলছেন, প্রবাসী বাংলাদেশিদের ওপর হামলার বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। তবে হামলার শিকার বাংলাদেশিদের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য নেই তাদের কাছে। কমিউনিটি নেতা টিএম রেজা বলেন, ‘আমরা এখানকার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি। ইতিমধ্যে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। তারা আশ্বাস দিয়েছেন, এলাকায় বাংলাদেশিদের নিরাপত্তা জোরদার করবে।’

ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকার নিরাপত্তা জোরদারের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে জানানোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন বলেন, ‘খুব শীঘ্রই প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে মতবিনিময়ের আয়োজন করতে যাচ্ছি। স্থানীয় পুলিশের সঙ্গেও আমাদের যোগাযোগ হবে। যাতে বাংলাদেশিদের ওপর এমন হামলা না আসে। এগুলো যাতে সুরাহা করা যাই সেই ব্যবস্থায় করা হবে।’

এ ধরনের হামলায় ভয় না পেয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলার আহ্বান জানিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। একইসঙ্গে সবাইকে সতর্ক হয়ে চলার পরামর্শ দেন তারা। অন্যান্য স্থানের পাশাপাশি ফ্রান্সের প্যারিসের এই গার্দু নর্দ যেটি প্রবাসীদের কাছে এক টুকরো বাংলাদেশ হিসাবেই পরিচিত এখানে এখন প্রায়ই আক্রমণের শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশীরা তারা মনে করেন স্থানীয় দূতাবাসের মাধ্যমে প্রশাসনে অভিযোগের পাশাপাশি সম্মিলিত প্রতিরোধ গড়ে তুলা হলে এসব আক্রমণ কিংবা হামলা রোধ করা সম্ভব।

আরও সংবাদঃ আপত্তি উপেক্ষা করেই সংসদে পাস হলো ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল

সংসদে কওমি সনদের বিল পাশ করায় সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী সাহেব

ফেসবুকে লাইক দিন