পুড়ে ছাই পাওয়ার গ্রিড, পুরো সিলেট বিভাগ বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন

ইমান২৪.কম: সিলেটের কুমারগাঁওয়ে জাতীয় গ্রিডের সঞ্চালন লাইনের নিয়ন্ত্রণ ট্রান্সফরমারে লাগা আগুন এখনও জ্বলছে। আগুন লাগার প্রায় দেড় ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসেনি। থেমে থেমেই আগুনের লেলিহান শিখা বাড়ছে।

আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের অন্তত ৪টি ইউনিট কাজ করছে। পাওয়ার গ্রিডে লাগা এই আগুনে সিলেট জেলাসহ বিভাগের অন্যান্য জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বেলা ১১টার দিকে ৩২ কেভি হাইভোল্টেজ ওই লাইনটিতে আগুন লাগে।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করা ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেনি। এদিকে জাতীয় গ্রিডের সঞ্চালন লাইনে আগুন লাগার খবরে আশপাশের এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় উৎসুক জনতা ঘটনাস্থলে ভিড় করে।

এলাকাবাসীর মধ্যে ভীতি ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে দেখা যায়, জাতীয় সঞ্চালন লাইনের দুটি ট্রান্সফরমারে আগুন লেগেছে। জাতীয় গ্রিড থেকে ওই দুই ট্রান্সফরমারে আসা লাইনগুলো জ্বলে পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। ট্রান্সফরমারগুলো মেরামতের কাজ শেষ হতে কতক্ষণ লাগতে পারে সে বিষয়েও সরেজমিনে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে কোনও ধারণা পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে পিডিবির প্রধান প্রকৌশলী মোকাম্মেল হোসেন জানিয়েছেন, দুটি ট্রান্সফরমার পুড়ে গেছে। গোটা জেলায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এমনকি সিলেট বিভাগের অন্য তিন জেলা হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জেরও কিছু কিছু অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে।

জানা গেছে, কুমারগাঁও পাওয়ার গ্রিডে ৮ থেকে ১০টি ট্রান্সফরমার রয়েছে। ট্রান্সফর্মারের পাশাপাশি আরও অন্যান্য সরঞ্জামাদিও পুড়ে গেছে। বিভিন্ন যন্ত্রাংশ বিস্ফোরিত হয়েছে।

সিলেটের কুমারগাঁও গ্রিড ও ফেঞ্চুগঞ্জ গ্রিডের মাধ্যমে সিলেটের সকল উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। কুমারগাঁও গ্রিড থেকে ৮ উপজেলায় ও ফেঞ্চুগঞ্জ গ্রিড থেকে ৫ উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়।

তবে কুমারগাঁও গ্রিডে ওভার লোডের সমস্যা থাকায় দূরবর্তী উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যয়সাপেক্ষ হয়। সবশেষ সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার চারখাইয়ে প্রায় শতকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে ৮০ কেভি গ্রিড স্টেশন। সেই স্টেশন থেকে জেলার ১৩ উপজেলাতেই বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়।

ফেসবুকে লাইক দিন