সংসদে দাড়িয়ে ভারতকে কঠোর হুশি য়ারি ইমরানের

ইমান২৪.কম: কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে ভারতকে হুঁশিয়ারি দিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

পাক সংসদে দাঁড়িয়ে রীতিমতো আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে ইমরান বললেন, ‘ভারত যে পথে এগোচ্ছে তাতে আরও একটা পুলওয়ামা হবে। আর তাঁর জন্য পাকিস্তান দায়ী থাকবে না।’

শুধু তাই নয়, পাক প্রধানমন্ত্রীর দাবি, ‘কাশ্মীর নিয়ে ভারত যে মনোভাব দেখাচ্ছে তা ঔদ্ধত এবং স্বৈরাচারের পরিচয়।

আমরা চেয়েছিলাম আলোচনা করে শান্তিপূর্ণভাবে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে। কিন্তু ভারত সমস্যা আরও বাড়াচ্ছে।’

পাক প্রধানমন্ত্রীর দাবি, ভারতের পদক্ষেপ দ্বিজাতি তত্ত্বের প্রয়োজনীয়তা আরও একবার প্রমাণিত হল। ভারত ৩৭০ ধারা বিলোপ করায় নিজের দেশেই বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

বিরোধীরা তাঁকে সংসদে কোণঠাসা করছেন। এই পরিস্থিতিতে কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনার জন্য সংসদের যৌথ অধিবেশন ডেকেছিলেন তিনি।

সেখানে বক্তৃতা রাখতে গিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষমতায় আসার পর আমার প্রথম উদ্দেশ্য ছিল প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখা, যাতে আমরা আমাদের আর্থিক পরিস্থিতি শোধরাতে পারি।

ভারতের সঙ্গেও আমরা আলোচনা করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার সন্দেহ ছিল, ভারত আলোচনা চায় না।

গতকাল যা হয়েছে তাতে আমরা সেই সন্দেহই বিশ্বাসে পরিণত হয়েছে। ভারত আলোচনা চায় না। ভারতে হিন্দুদের সব ধর্মের উপরে গণ্য করা হয়। অন্য সব ধর্মকে দমিয়ে রাখা হয়।

আমরা শুধু কাশ্মীরবাসীর জন্য লড়াই করছি না। আমরা লড়াই করছি ধর্মবিদ্বেষের বিরুদ্ধে।’ এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন।

ইমরান খান বলেন, ‘এবার কাশ্মীরে আরও দমননীতি চালাবে ভারত। নির্মমভাবে বাহিনী ব্যবহার করে কাশ্মীরিদের দমন করা হবে।

আমার ভয় ওরা কাশ্মীরের মাটির জন্য কাশ্মীরদের নির্মমভাবে গণহত্যা করতে পারে। এই ধরনের পদক্ষেপ যদি নেওয়া হয়, তাহলে পুলওয়ামার মতো ঘটনা আবার ঘটবে, ঘটতে বাধ্য।

এতে পাকিস্তানের কিছু করার থাকবে না।’ কূটনীতিকদের একাংশ বলছেন, সংসদে দাঁড়িয়ে ইমরান খান যেভাবে পুলওয়ামার ধাঁচে হামলার হুঁশিয়ারি দিলেন,

তাতে একটা জিনিস স্পষ্ট হয়ে গেল, পুলওয়ামা হামলায় পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদত ছিল। যদিও ইমরান সংসদে দাবি করেছেন, পুলওয়ামা হামলায় পাকিস্তানের কোনও হাত নেই।

আরো পড়ুন>> জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেন, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপের বিষয়টি জাতিসংঘের পর্যবেক্ষণের মধ্যে রয়েছে।

জাতিসংঘ সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। কাশ্মির ইস্যুতে ভারত ও পাকিস্তানকে সংযত হওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব।

গতকাল সোমবার মহাসচিবের মুখপাত্র স্টেফেন দুজারিক বলেছেন, ভারত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাখ্যানের পর সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে জাতিসংঘ।

তিনি জানিয়েছেন, জম্মু ও কাশ্মীরে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধবিরতি পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি সীমান্তে সামরিক শক্তি বৃদ্ধির বিষয়টিও জাতিসংঘ পর্যবেক্ষণ করছে।

প্রসঙ্গত, ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা, যা কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ বা বিশেষ মর্যাদা দেয় তা বিলোপ করার ঘোষণা দেয় বিজেপি সরকার।

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সোমবার সংসদে বিরোধীদের তুমুল বাধা ও বাক-বিতণ্ডার মধ্যে এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন।

ইমান২৪/এ/আর

ফেসবুকে লাইক দিন