পরিবেশ দূষণ বাড়াবে দিপাবলির আতশবাজি

ইমান২৪.কম: আদালতের নির্দেশ অমান্য করে দিপাবলীর রাতে আতশবাজি পোড়ানোয়, ভারতে চলমান বায়ূ দূষণ আরও বাড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আতশবাজির কারণে সৃষ্ট পরিবেশ দূষণ ও স্বাস্থ্যবিধি-নিরাপদ দূরত্ব না মানায় ভারতে করোনা সংক্রমণ আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, আতশবাজি না পোড়ানোর বিষয়ে আদালতের দেওয়া আদেশ বাস্তবায়নে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি সরকার। এদিকে আগের দিনগুলোর ধারাবাহিকতায় রোববারও দিল্লির বাতাসের মান আরও খারাপ হয়েছে। চলমান দূষণ নিয়ন্ত্রণে দিপাবলিতে আতশবাজি পোড়ানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন ভারতের পরিবেশ আদালত।

কিন্তু সে আদেশ উপেক্ষা করে শনিবার রাতে আতশবাজি উৎসবে মাতেন রাজধানী দিল্লিসহ অন্যান্য শহরের বাসিন্দারা। আতশবাজি পুড়িয়ে উৎসব করা ভারতবর্ষের পুরাতন ঐতিয্যগুলোর মধ্যে একটি। ভোটের পর বিজয় মিছিল বা কোনো খেলায় বিজয় উদযাপন, পুজো বিয়ে বাড়িসহ যেকোনো অনুষ্ঠানে আনন্দ করার জন্য বাজি পোড়ানো হয়ে থাকে।

কিন্তু এতদিন পরিবেশ বিপর্যয়ের বিষয়টি সামনে না এলেও এখন এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকছে না। স্থানীয়দের মধ্যে কেউ কেউ অভিযোগ করেন, ‘সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণেই পরিবেশ আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি।

নির্দেশনা উপেক্ষা করে আতশবাজি পোড়ানোয় দিল্লিসহ আশপাশের শহরগুলোতে দূষণ আরো বাড়বে। শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেওয়া হলে কেউ ভয় পাবে না।’ অন্যদেক, জার্মান ভিত্তিক গণমাধ্যম ডয়েচে ভেলে এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন, ভারতের ৮০ শতাংশ আতশবাজিই বেআইনিভাবে তৈরি এবং বিক্রি করা হয়।

এসবের মধ্যে নিষিদ্ধ বাজিও রয়েছে। পুজা মন্ডপে আসা একজন দর্শনার্থী বলেন, ‘আতশবাজি পোড়ানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল যাতে দূষণ কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণ করা যায়। কিন্তু বিপুল সংখ্যক আতশবাজি পোড়ানো হয়েছে। এরফলে বায়ূমান আরও কমবে।

ভোরে হাটার সময়ই আমি সমস্যায় পড়েছি। আমরা আতশবাজির অনেক শব্দ শুনেজি। কেউই সরকারের নিষেধাজ্ঞায় কান দেননি। আমাদেরকেই এর মূল্য দিতে হবে।’ এদিকে রোববারও এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে দিল্লির বাতাসের মান ছিল সাড়ে ৪শ’র কাছাকাছি, যা অতি খারাপ হিসেবে বিবেচিত। এ চিত্র শুধু রাজধানীর নয়, আশপাশের শহরগুলোতেও প্রতিনিয়ত বাড়ছে দূষণ।

ফেসবুকে লাইক দিন