নোয়াখালী-৫: এবার লড়াই হবে মওদুদ-কাদেরের

ইমান২৪.কম: কারাবন্দি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দিয়ে মনোনয়ন চিঠি ইস্যু শুরু করেছে বিএনপি। সোমবার বেলা সোয়া ৩টার দিকে গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে এই চিঠি হস্তান্তর করা হচ্ছে।

প্রথমে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছ থেকে বগুড়া-৬ আসনে খালেদা জিয়ার পক্ষে মনোনয়ন চিঠি গ্রহণ করেন ভিপি সাইফুল ইসলাম। এরপর বগুড়া-৭ আসনে তার জন্য আরেকটি মনোনয়ন চিঠি গ্রহণ করেন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা হেলালুজ্জামান লালু।

পরে তার জন্য ফেনী-১ আসনেও মনোনয়ন ইস্যু করা হয়। এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এরইমধ্যে আওয়ামী লীগের বেশ কিছু হেভিওয়েট প্রার্থী মুখোমুখি হচ্ছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় লড়াইটা অপেক্ষা করছে নোয়াখালী-৫ আসনে (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট)।

এই আসনটিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে ভোটে লড়বেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যরিস্টার মওদুদ আহমেদ।

নোয়াখালী জেলার ৬টি আসনের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ আসন নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট)। চিরপ্রতিদ্বদ্বী আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই শীর্ষনেতার মধ্যে এবার কঠিন লড়াই হবে বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।

দুদলের দুজন প্রভাবশালী রাজনীতিবিদের কারণেই এ আসনটির দিকে এখন সবার নজর। তবে এ আসনটিতে কোনও দলেরই একচেটিয়া আধিপত্য নেই। এ আসনটি বিএনপি পুনরুদ্ধারে সচেষ্ট, তেমনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগও চায় জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে।

এদিকে ঢাকা-২ আসনে নৌকা প্রতীকে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাড. কামরুল ইসলামের মুখোমুখি হচ্ছেন বিএনপির প্রার্থী দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি আমানউল্লাহ আমান। তাই আসনটিতে কঠিন লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়া ঢাকা-৩ আসনে এবার বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি আরেক প্রভাবশালী নেতা দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। এখানেও ভোটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: 

ফেসবুকে লাইক দিন