নূরানী শিক্ষার্থীদের কোন অবস্থাতেই বেত্রাঘাত করবেন না : শিক্ষকদের প্রতি আল্লামা আহমদ শফী

ইমান২৪.কম: নূরানী শিক্ষার্থীদের কোন অবস্থাতেই বেত্রাঘাত না করার আহবান জানিয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর ও নূরানী তালীমুল কুরআন বোর্ড চট্টগ্রাম বাংলাদেশের চেয়ারম্যান শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, “আমি সব সময় নূরানীর শিক্ষকদের একটি নছিহত গুরুত্ব সহকারে করে থাকি। তাহলো “ছাত্র-ছাত্রীদের স্বীয় সন্তানের চেয়ে বেশী মুহাব্বত করতে হবে। কোন অবস্থাতেই বেত্রাঘাত করবেন না।

তাদের সব সময় ভয় দেখাবেন না, অভয় দিবেন। না বুঝলে বুঝাবেন। তাদের সাথে পিতৃসুলভ আচরণ করবেন। পড়া লেখায় অমনোযোগী হলে তাকে পিতৃসুলভ আচরণে বোঝাবেন। মনে রাখবেন আপনাদের হাত ধরেই আগামী প্রজন্মের উত্থান গঠবে। একটি আদর্শ ও অনুকরনীয় জাতি হিসেবে গড়ে উঠব।”

গত শনিবার নুরানী তালীমুল কুরআন বোর্ড চট্টগ্রাম বাংলাদেশের তত্বাবধানে হাটহাজারী মাদরাসায় পরিচালিত নুরানী মুআল্লীম প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, “শিক্ষকতা একটি সম্মানজনক পেশা। শিক্ষকরাই পারেন একটি জাতিকে আদর্শ ও উন্নত রূপে গড়ে তুলতে। তবে আপনারা সেই শিক্ষকদের চেয়েও আরো বেশী সম্মানী ও উত্তম। আপনাদের ব্যাপারে স্বয়ং নবী করীম স. বলেছেন- তোমাদের মধ্যে সর্বোত্তম সেই ব্যক্তি যে কুরআন মাজিদ শিক্ষা করে এবং শিক্ষা দেয়।

অতএব আপনারাই সর্বোত্তম ব্যক্তি। সে হিসেবে আপনাদের অতিরিক্ত কিছু দায়িত্ব পালন করতে হবে। শিক্ষকতা পেশা হিসেবে নয় নেশা হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। সবসময় ফিকির করতে কিভাবে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়া লেখার উন্নতি সাধন করা যায়।দীনের কাজ ও খেদমত মনে করে শিক্ষকতা করবেন আল্লাহ রিযিকে বরকত এবং সদকায়ে জারিয়ার সাওয়াব দিবেন।”

আহমদ শফী আরো বলেন, “আপনারা রোযা রেখে কঠোর পরিশ্রম করে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন শুধুমাত্র কুরআনের মুহাব্বতে। নিজেদের আদর্শ ও দক্ষ করে গড়ে তোলতে প্রশিক্ষণে মনোযোগী হবেন।

আপনাদের প্রশিক্ষকগণের দৈনিক পাঠগুলো যথাযথ ভাবে আদায় করবেন। হাতের লেখা পরিস্কার করবেন। কারণ প্রশিক্ষণ থেকে দক্ষ হয়ে গেলে কর্মক্ষেত্রেও দক্ষতার পরিচয় দিতে পারবেন। মনে রাখবেন শিক্ষতা দুনিয়ার সকল পেশা থেকে সম্মানী পেশা।”

আহমদ শফী সাহেবের সাথে এ সময় উপস্থিত থাকেন, বোর্ডের মহাসচিব মুফতী জসিম উদ্দীন, বোর্ডের প্রশিক্ষক মাওলানা সেলিম উদ্দীন খান, মাওলানা আবুল হাশেম, মাওলানা কারী জহিরুল ইসলাম, মাওলানা মাসুদুর রহমান, মাওলানা আবছার কামাল, মাষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এবং হযরতের একান্ত সচিব মাওলানা শফিউল আলম ও মাওলানা ইবরাহীম খলিল সিকদারসহ আরো অন্যান্য ওলামায়ে কেরাম৷

আরও পরুনঃ হালাল উপার্জনের সুফল ও হারাম উপার্জনের কুফল 

পটুয়াখালীতে আগুনে পুরে বসতঘর ভস্মীভূত হলেও অক্ষত থাকে কোরআন

ফেসবুকে লাইক দিন