ধর্ম’ভিত্তিক রাজনীতি নি’ষিদ্ধকারীদের প’রিণতি শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপ হবে

ইমান২৪.কম: যারা আ’ইন ও সংবিধানের বিরুদ্ধে গিয়ে ধর্মীয় ছাত্র রাজনীতির নামে ইসলামী রাজনীতি নি’ষিদ্ধের অপচেষ্টা করছে, তাদের পরিণতি শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপ হবে বলে

মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিসের নেতাকর্মীরা। নেতাকর্মীরা বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাসদ, বাসদ ও লীগের রাজনীতি চললে ইসলাম ও খেলাফতের রাজনীতিও চলবে। ষ’ড়য’ন্ত্র করে ধর্মীয় ছাত্র রাজনীতি

বন্ধ করা যাবে না। নাগরিক হিসেবে প্রত্যেকের সংগঠন ও রাজনীতি করার যেমন অধিকার আছে, ঠিক তেমনিভাবে ধর্মীয় সংগঠন ও রাজনীতি করারও অধিকার রয়েছে। শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিস

ঢাকা মহানগরের উদ্যোগে ডাকসু’র বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মভিত্তিক ছাত্র রাজনীতি নি’ষি’দ্ধের প্রতিবাদে বি’ক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে ব’ক্তারা এসব কথা বলেন। সমাবেশে বক্তারা বলেন, নবাব স্যার সলিমুল্লাহ

বা’ম-রা’মদের রাজনীতি চর্চার জন্য ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেননি। বরং একজন মুসলিম হিসেবে ইসলামী রাজনীতি চর্চার জন্যই ঢাবি প্রতিষ্ঠা করেন। সুতরাং যারা আইন ও সংবিধানের বিরুদ্ধে গিয়ে ধর্মীয়

ছাত্র রাজনীতির নামে ইসলামী রাজনীতি নি’ষিদ্ধের অপচেষ্টা করছে, তাদের পরিণতি শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপ হবে। ডাকসুকে হুঁ’শি’য়ারি উচ্চারণ করে বলেন, যেখানে দেশের সংবিধান ধর্মীয় রাজনীতির অনুমোদন

দিয়েছে, সেখানে ডাকসু ধর্মীয় রাজনীতি নিষিদ্ধ করার কে? বক্তারা বলেন, যদি অথর্ব ডাকসু তাদের এই অসাংবিধানিক সি’দ্ধান্ত প্রত্যাহার না করে তাহলে বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিসের নেতৃত্বে সারাদেশে দুর্বার

আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। বাংলাদেশের সংবিধান বিরোধী এই সি’দ্ধান্তের প্রতিবাদে মোহাম্মাদপুরের আল্লাহ করীম জামে মসজিদ থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে টাউনহল কেন্দ্রীয় শহীদপার্ক মসজিদ চত্বরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

ফেসবুকে লাইক দিন