ধর্মকে রাষ্ট্র থেকে আলাদা রাখতে হবে: শাহরিয়ার কবির

বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক ও গবেষক শাহরিয়ার কবির সম্প্রতি একটি অনলাইন পোর্টালে সাক্ষাৎকার দেন। সেখানে তাকে প্রশ্ন করা হয়, ভারত-চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের এই পরিস্থিতির মধ্যে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ কী?

শাহরিয়ার কবির বলেন, বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ শান্তির দিকে। আমরা কারও সঙ্গে শত্রুতা তৈরির পক্ষে নই। বন্ধুত্ব সবার সঙ্গে। বাংলাদেশ বিশ্ব শান্তির পক্ষে।

এগুলো সবই বঙ্গবন্ধুর দর্শন। ১৯৭২ সালের সংবিধান হচ্ছে বাংলাদেশের জাতীর দর্পণ। কিন্তু বর্তমান আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে অনেক দূরে সরে গেছে।

শেখ হাসিনার সরকার এবার এসে গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে ব্যাখ্যা দিচ্ছেন। সহনীয় ধর্মনিরপেক্ষতা যাকে বলে। ধর্মকে ফেলে দেয়া যাবে না, কিন্তু রাষ্ট্র থেকে আলাদা রাখতে হবে।

তুরস্কের কামাল আতাতুর্ক ধর্মকে নাকচ করেছিলেন। এটি করলে আর চলবে না। ধর্ম ধর্মের জায়গায়, রাষ্ট্র রাষ্ট্রের জায়গায় রাখতে হবে।

শাহরিয়ার কবিরকে প্রশ্ন করা হয়, শেখ হাসিনার সরকারের যে অভিযাত্রা সেখানে রাষ্ট্র আর ধর্মকে আলাদা করার সুযোগ আছে?

শাহরিয়ার কবির বলেন, আমাদের লড়াইটা ঠিক এখানেই। আমরা দেখতে পাচ্ছি আওয়ামী লীগ ক্রমশই হেফাজতের দিকে ঝুঁকছে।

জামায়াতিরা ক্রমশই আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করছে। আমরা এ বিষয় নিয়ে লড়াই থেকে সরে আসিনি। যু’দ্ধাপরাধের বিচারের জন্য আমাদের ৪০ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে।

’৭২-এর সংবিধানে ফেরার জন্য ল’ড়াইটা চালিয়ে যেতে হচ্ছে। এ ল’ড়াইটা এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্ম পর্যন্ত চলবে।

আমরা মনে করি, শিক্ষানীতি, নারীনীতি, সংস্কৃতিনীতি, কূটনীতি— সবকিছু যদি সংবিধান অনুযায়ী চলে তাহলে আমরা যেখানে পৌঁছাতে চাই, সেখানে পৌঁছাতে পারব।

ফেসবুকে লাইক দিন