‘তিনগুণ শক্তিশালী’ করোনার নতুন ধরন শনাক্ত

এখনবাংলা: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের অভিঘাতে তছনছ গোটা বিশ্ব। দেশে দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যু বেড়েই চলেছে। দেশে দেশে শোকের মাতমে ভারি হচ্ছে বাতাস। এরইমধ্যে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বের অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে প্রায় ৩ লাখ ১৬ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। যা দৈনিক সংক্রমণের দিক থেকে যক্তরাষ্ট্রকেও ছাড়িয়ে গেছে।

এই ভারতেই এবার শনাক্ত করোনা ভাইরাসের ‘নতুন ধরন’ বিশ্বে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। আগেও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, এমন ব্যক্তিকেও আবার আক্রান্ত করতে সক্ষম ভাইরাসের এই ‘ডাবল মিউটেশন’। করোনার সেই ‘ডাবল মিউটেশন’ এর আতঙ্ক কাটিয়ে উঠার আগেই দেশটিতে শনাক্ত হয়েছে ‘ট্রিপল মিউট্যান্ট ভ্যারিয়েন্ট’ বা তিনবার রূপ পরিবর্তনকারী ধরন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হচ্ছে, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতের বেশ কয়েটি রাজ্যে এরইমধ্যে ভাইরাসের ‘ট্রিপল মিউট্যান্ট ভ্যারিয়েন্ট’ ছড়িয়ে পড়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার তিনটি আলাদা ধরন একীভূত হয়ে সৃষ্টি হওয়া ভাইরাসের এই নতুন ধরনটির সংক্রমণ ক্ষমতাও প্রায় তিনগুণ বেশি। যার কারণে ভাইরাসটির নতুন ধরনে আক্রান্তদের দ্রুত শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছে।

তারা মনে করছেন, আপাতত ভাইরাসটির নতুন এই ধরনের বিরুদ্ধে একের পর এক টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষা করে যাওয়া ছাড়া বিকল্প কোনও পথ নেই। তবে সবার আগে প্রয়োজন নিয়মিত জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের মাধ্যমে ধরনটির চরিত্র বিশ্লেষণ।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ভাইরাসের ‘ডাবল মিউট্যান্ট’ ধরনটি সঠিক সময়ে শনাক্ত না হওয়ার কারণেই হয়তো ‘ট্রিপল মিউট্যান্ট’ ছড়িয়ে পড়েছে। ভাইরাস যত ছড়ায় সেটির মিউটেশনের বা রূপান্তরিত হওয়ার হারও তত বৃদ্ধি পায়। যে কারণে নতুন ধরনে শিশুরাও সংক্রমিত হচ্ছে।

নতুন এ ধরনটি নিয়ে বিজ্ঞানীদের কাছে খুব বেশি তথ্য নেই। এদিকে ভারতে সুনামির মতো বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ লক্ষাধিক আক্রান্তের পাশাপাশি রেকর্ড ২ সহস্রাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন