মসজিদে আযান দেয়ার সময় বাবাকে কোপাল ছেলে

ইমান২৪.কম: ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার লস্করদিয়া ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম ফকির (৩৫) তার বাবাকে ধারালো ছুরি দিয়ে কুপিয়ে আহত করেছে।

এ ঘটনায় শহিদুলকে আটক করেছে পুলিশ। গোড়াইল গ্রামের ছাইফুন্নেছা জামে মসজিদের মোয়াজ্জিন আছিরুদ্দিন ফকির (৬২) বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) ভোরে মসজিদের মাইকে ফজরের আযান দিচ্ছিলেন।

এসময় মোয়াজ্জিন আছিরুদ্দিনকে (বাবা) ধারালো ছুরি দিয়ে কুপিয়ে আহত করে তারই ছেলে। মোয়াজ্জিন আছিরুদ্দিনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করেছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, আছিরুদ্দিন ফকির গোড়াইল গ্রামের ছাইফুন্নেছা জামে মসজিদের মোয়াজ্জিন। ভোরে ফজরের আযান দিচ্ছিলেন তিনি। আযান শেষ না হতেই আছিরুদ্দিন ফকিরের আর্তচিৎকার শুনতে পান প্রতিবেশীরা।

তার চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে ছুটে যান গোড়াইল গ্রামের মৃত শুকুর মাতুব্বরের ছেলে আজিজ মাতুব্বর, হোসেন বিশ্বাসের ছেলে আক্কাছ মাতুব্বর, এলেম শেখের ছেলে সাইফুল শেখসহ বেশ কয়েকজন।

তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পান, মোয়াজ্জিন আছিরুদ্দিন রক্তাক্ত অবস্থায় তার ছেলে শহিদুলকে জাপটে ধরে আছেন। শহিদুলের হাতে এসময় ধারালো একটি ছুরি ছিল।

আহত আছিরুদ্দিনের শরীর থেকে এসময় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। প্রতিবেশী আজিজ মাতুব্বরসহ স্থানীয়রা বলেন, আমরা গ্রামবাসী মসজিদ থেকে আহত আছিরুদ্দিনকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেছি।

হাসপাতালে নেয়ার পথে আহত আছিরুদ্দিন বলেন, হত্যা করতে আমাকে ছুরি দিয়ে কুপিয়েছে আমার ছেলে শহিদুল। ওকে তোরা ধর, ছাড়িস না। আমি মনে হয় বাঁচবো না।

আমি মারা গেলে জমিজমা আমার দুই মেয়ে ও নাতিনদের দিস। শহিদুল যেন আমার কোনো সম্পত্তি না পায়, ও আমাকে জমির জন্য হত্যা করতে চেয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন