ডা. জাফরুল্লাহর অবস্থার উন্নতি

ইমান২৪.কম: গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তিনি এখন কথাবার্তা বলতে পারছেন। তবে শ্বাসকষ্ট থাকায় এখনও অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। আজ (শনিবার, ৬ জুন) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা ফরহাদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘গত দু’দিন ডা. জাফরুল্লাহ স্যারের যে অবস্থা ছিল, আজ তার থেকে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। শ্বাসকষ্ট থাকায় তাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। তবে সেটার মাত্র গত দু’দিনের তুলনায় কম। এখন তিনি কথাবার্তাও বলতে পারছেন।’

ডা. জাফরুল্লাহর শারীরিক অবস্থায় কিছুটা উন্নতি হওয়ার শুক্রবার (৫ জুন) রাতে তাকে প্লাজমা দেওয়া হয়েছে এবং তার কিডনি ডায়ালাইসিস করা হয়েছে। তিনি গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. মামুন মুস্তাফি, অধ্যাপক ডা. নজীব মোহাম্মদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন আছেন।

এরআগে বৃহস্পতিবার রাতে ডা. জাফরুল্লাহর কিডনি ডায়ালাইসিস শুরু হলেও তার শরীরের অবস্থা খারাপ হওয়ায় তা সম্পন্ন করা যায়নি। শুক্রবার তার অবস্থার আরও আরও অবনতি হয়। তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। প্রসঙ্গত, ২৫ মে ডা. জাফরুল্লাহ করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিট দিয়ে পরীক্ষাতেই তার করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরপরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরীক্ষাতেও পজিটিভ এসেছে। ডা. জাফরুল্লাহর পাশাপাশি তার স্ত্রী শিরীন হক ও ছেলে বারিশ চৌধুরীও করোনায় আক্রান্ত।

তারা বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তিনি এখন কথাবার্তা বলতে পারছেন। তবে শ্বাসকষ্ট থাকায় এখনও অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। আজ (শনিবার, ৬ জুন) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা ফরহাদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘গত দু’দিন ডা. জাফরুল্লাহ স্যারের যে অবস্থা ছিল, আজ তার থেকে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। শ্বাসকষ্ট থাকায় তাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। তবে সেটার মাত্র গত দু’দিনের তুলনায় কম। এখন তিনি কথাবার্তাও বলতে পারছেন।’ ডা. জাফরুল্লাহর শারীরিক অবস্থায় কিছুটা উন্নতি হওয়ার শুক্রবার (৫ জুন) রাতে তাকে প্লাজমা দেওয়া হয়েছে এবং তার কিডনি ডায়ালাইসিস করা হয়েছে।

তিনি গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. মামুন মুস্তাফি, অধ্যাপক ডা. নজীব মোহাম্মদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন আছেন। এরআগে বৃহস্পতিবার রাতে ডা. জাফরুল্লাহর কিডনি ডায়ালাইসিস শুরু হলেও তার শরীরের অবস্থা খারাপ হওয়ায় তা সম্পন্ন করা যায়নি।

শুক্রবার তার অবস্থার আরও আরও অবনতি হয়। তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। প্রসঙ্গত, ২৫ মে ডা. জাফরুল্লাহ করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিট দিয়ে পরীক্ষাতেই তার করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরপরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরীক্ষাতেও পজিটিভ এসেছে। ডা. জাফরুল্লাহর পাশাপাশি তার স্ত্রী শিরীন হক ও ছেলে বারিশ চৌধুরীও করোনায় আক্রান্ত। তারা বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন