ইসরাইলকে আমিরাতের স্বীকৃতির বিরুদ্ধে পাকিস্তানজুড়ে ব্যাপক বিক্ষোভ

ইমান২৪.কম: ইহুদিদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃক স্বীকৃতি প্রদানের বিরুদ্ধে পাকিস্তানজুড়ে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (১৬ আগস্ট) দেশটির ধর্মীয় রাজনৈতিক জোট মিল্লি ইয়াকজেহতী কাউন্সিলের আহ্বানে রাজধানী ইসলামাবাদ, বন্দর শহর করাচি, উত্তর-পূর্ব শহর লাহোর, রাওয়ালপিন্ডি, পেশোয়ার, কোয়েটা, ফয়সালাবাদ, মুলতান, হায়দরাবাদসহ আরও বেশকিছু শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাওয়ালপিন্ডির গ্যারিসন শহরে কয়েক হাজার মানুষ জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তানের (জেআই) দলীয় প্রধান সিনেটর সিরাজুল হকের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেয়। এসময় বিক্ষোভকারীরা ‘ইসরাইল নিপাত যাক’, ‘আমেরিকার মধ্যস্থতায় আমিরাত- ইসরাইল চুক্তি মানিনা’, ‘ফিলিস্তিনের সাথে আছে পাকিস্তান’ ইত্যাদি স্লোগান সংবলিত ব্যানার ও প্লেকার্ড বহন করে।

পরে মিছিল শেষে ঐতিহাসিক লিয়াকত পার্কে সমাবেশ করে। সমাবেশে সিরাজুল হক বলেন, ফিলিস্তিন কেবল আরবদের ইস্যু নয়, সমগ্র মুসলিম বিশ্বের ইস্যু। ফিলিস্তিন ফিলিস্তিনিদের ভূমি। কোনও চুক্তি বা পশ্চাদপটতা তাদের মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারে না। তিনি আরও বলেন, ফিলিস্তিনিরা তাদের ভূখন্ডের জন্য ৭০ বছরেরও বেশি সময় ধরে লড়াই করে আসছে।

তবে ১৩ আগস্ট, ২০২০ ইং তারিখের আগ পর্যন্ত কোনও দেশ ইহুদিবাদী ইসরাইলকে সমর্থন দিয়ে নিজেকে লাঞ্ছিত করতে পারেনি যা আরব আমিরাত করেছে। সমগ্র মুসলিম বিশ্ব এই তথাকথিত চুক্তিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। তিনি ইসলামাবাদকে সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) একটি জরুরি সভা ডাকার জন্য আহ্বান জানান।

এছাড়াও করাচিতে করাচি প্রেসক্লাব চত্বরে কয়েক হাজার মানুষ একত্রিত হয় এবং এই বিতর্কিত চুক্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এসময় জেআই-এর করাচির প্রধান হাফিজ নাঈমুর রহমান এই চুক্তিটিকে মুসলিম ঐক্যের উপর বিরাট আঘাত এবং ফিলিস্তিনিদের পিঠে ছুরিকাঘাত বলে অবিহিত করেন।

তিনি বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত বা অন্য কোনো দেশেরই এই অধিকার নেই যে, শান্তির নামে ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে গিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইলকে সমর্থন দিতে পারে। এদিকে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের রাজধানী পেশোয়ারে ঐতিহাসিক মহাবত খান মসজিদের সামনে বিপুল সংখ্যক লোক জড়ো হয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

ফেসবুকে লাইক দিন