চাকরির জন্য প্রতিদিন’ই যাদের অশ্লিল ভিডিও দেখা লাগে

নিজেস্ব প্রতিবেদক: চাকরির জন্য অশ্লিল ভিডিও দেখা যেন তাদের নিত্য দিনের কাজ। আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করি তাদের সবাই ফেসবুক নাম টার সাথে পরিচিত। এখন ছোট থেকে শুরু করে বয়স্ক বুড়ো ও ফেসবুক নামের সাথে পরিচিত। ফেসবুক এখন দুনিয়া জুড়ে। এই ফেসবুকের অফিস আছে, সেই অফিসে  অনেক মানুষ কাজ করে। তাদের কাজ ফেসবুক টা দেখে শুনে রাখা, সারাহ কাট্জ নামে ফেসবুকের এমনই এক সাবেক কর্মী বিবিসিকে জানিয়েছেন, ইন্টারনেটে পাওয়া যায় এমন সব ধরনের কদর্যতম জিনিস তাকে এই চাকরিতে রোজ দেখতে হত, যার বেশিটাই পর্নোগ্রাফি – আর এর মারাত্মক প্রভাব পড়েছিল তার ব্যক্তিগত জীবনে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ অবশ্য বলছে, তারা তাদের মডারেটরদের মনস্তাত্ত্বিক সাহায্য দিতে সার্বক্ষণিক ব্যবস্থা রেখেছে। আসলে ফেসবুকে কাজ করেন এমন বেশ কিছু কর্মী, রোজ যারা ইন্টারনেটের কুৎসিততম জিনিসগুলো দেখেন – যাতে আমার আপনার মতো সাধারণ লোকের সেগুলো দেখতে না-হয়। ফেসবুকে কিছু আপত্তিকর চোখে পড়লে আপনি যদি সেটা রিপোর্ট করেন – তাহলে সেই অনুরোধ চলে আসে বার্লিনে ফেসবুকের এক লুকোনো অফিসে। আর সেখানে বসেই তাদের কনটেন্ট রিভিউয়াররা প্রতিদিন হাজার হাজার ছবি আর ভিডিও দেখে যাচাই করেন, সেগুলো ফেসবুকে রাখার উপযুক্ত কি না! কিন্তু এখানে একটা সমস্যা আছে।

ওই অফিসে কাজ করতেন, এমন এক কর্মী বিবিসিকে বলছিলেন, “আমাকে রোজ কাঁদতে হত। ফেসবুকে বোধহয় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ এটা – আর সবচেয়ে খারাপও, কিন্তু কারও যেন সেটা নিয়ে মাথাব্যথা নেই।” “রোজ অসম্ভব সব খারাপ ও যন্ত্রণাদায়ক জিনিস দেখতে হত … মাথা কেটে ফেলা, চাইল্ড পর্নোগ্রাফি, পশুদের ওপর নির্যাতন এই সব। একটা যেন যন্ত্রের মতো হয়ে গিয়েছিলাম – ওগুলো দেখে আঙুলের একটা ক্লিকে ঠিক করতে হত জিনিসটা থাকবে কি থাকবে না।”

যে ফেসবুক কর্মীদের এই ধরনের অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়, তাদের জন্য কর্তৃপক্ষ কী করছেন? ফেসবুক প্রোডাক্ট পলিসির প্রধান মনিকা বিকার্টের কাছে এই প্রশ্নই রেখেছিল বিবিসি। তিনি জানান, “কাজটা কঠিন কোনও সন্দেহ নেই। তবে আমি বলব রিভিউয়াররা যে ধরনের জিনিসপত্র দেখেন, এই ধরনের গ্রাফিক কনটেন্ট তার খুবই সামান্য একটা অংশ। আর ক্রমশ আমরা প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াচ্ছি, যাতে কেউ ফেসবুকে এই ধরনের জিনিস আপলোড করলে তা যাতে নিজে থেকেই রিভিউ করে সরিয়ে দেওয়া যায়।”

আরো পড়ুন>> আমরা কাউকে বেদাতি/কাফের বলে গালি দিবোনা: মাও. খালেদ সাইফুল্লাহ্ দা.বা.

ফেসবুকে লাইক দিন