চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে দুই পক্ষ মুখোমুখি

ইমান২৪.কম: চট্টগ্রাম সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের ঘোষিত কমিটি নিয়ে ২য় দিনেও সংঘাতের ঘটনা ঘটেছে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, সড়ক অবরোধের পাশাপাশি ককটেল বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।

আজ ১৯ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুরে চট্টগ্রাম কলেজের সামনের সড়কে এই সংঘাতের পর পুলিশ লাঠিচার্জ করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় অস্ত্র দেখা গেছে।

গত সোমবার রাতে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের মাহমুদুল করিমকে সভাপতি এবং সুভাষ মল্লিক সবুজকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৫ সদস্যের আংশিক কমিটির অনুমোদন দেন নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর।

অনুমোদিত কমিটি প্রত্যাখান করে গতকাল মঙ্গলবার প্রায় দুইঘণ্টা ধরে চট্টগ্রাম কলেজের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারীরা। এরপর আজ বুধবারও দুপুরের দিকে তারা আবার বিক্ষোভ শুরু করেন।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় অস্ত্র

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, দুপুরের দিকে চট্টগ্রাম কলেজ এলাকায় ছাত্রদের সঙ্গে বিপুল সংখ্যক বহিরাগত তরুণ-যুবক এসে যোগ দেয়। তাদের কারও কারও কোমরে রামদা-কিরিচ দেখা গেছে।

এসময় পথচারি, স্কুলের শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অনেকে প্রাণভয়ে ছুটোছুটি শুরু করেন।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (চকবাজার জোন) নোবেল চাকমা বলেন, মিছিল প্রথমে গণি বেকারির সামনে আসে। সেখান থেকে গুলজার মোড়ে ঘুরে আবারও গণি বেকারির সামনে আসলে ছাত্রদের দুইপক্ষ মুখোমুখি হয়।

তখন ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মধ্যে ৩ টি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। একগ্রুপ সড়কে বসে বিক্ষোভের চেষ্টা করে। পরে আমরা ধাওয়া দিলে তারা কলেজের ভেতরে ঢুকে যায়।

আরও পড়ুনঃ ভারত-বাংলাদেশ আমরা একটি পরিবার; বললেন নরেন্দ্র মোদি

মুহাম্মদ (সা.) এর ঐ সময়ে বাংলাদেশে নির্মিত মসজিদ (ভিডিও সহ)

ফেসবুকে লাইক দিন