গ্রাহকের টাকা অবৈধভাবে সরিয়ে নেয়ার আশঙ্কা: ই-ভ্যালির বিরুদ্ধে মামলা হবে!

ইমান২৪.কম: ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-ভ্যালির বিরুদ্ধে মামলা করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গ্রাহক ও মার্চেন্টদের ৩৩৮ কোটি টাকা অবৈধভাবে সরিয়ে নেয়ার আশঙ্কায় আইনি ব্যবস্থা নেয়ার চিন্তা করা হচ্ছে।

একইসঙ্গে ই-ভ্যালির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাওয়া আর্থিক অনিয়মগুলো তদন্ত করে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গ্রাহকদের কাছ থেকে অগ্রিম ২১৪ কোটি টাকা নেয়ার পরও পণ্য সরবরাহ করা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ১৯০ কোটি টাকা বকেয়া রাখার অভিযোগ রয়েছে ই-ভ্যালির বিরুদ্ধে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, বর্তমানে ই-ভ্যালির মোট দায় ৪০৭ কোটি ১৮ লাখ টাকা। এর বিপরীতে সম্পদ রয়েছে মাত্র ৬৫ কোটি ১৭ লাখ টাকা।

আরো পড়ুন>> দেশের বাজারে সয়াবিন তেলের দামে অস্থিরতা বিরাজ করছে। কয়েক দফা দাম বাড়ার পর ৯ টাকা বেড়ে প্রতি লিটার তেল ১৫৩ টাকায় পৌঁছায়। তবে সেই ৯ টাকা থেকে প্রায় অর্ধেক (৪ টাকা) কমে প্রতি লিটার তেল বিক্রি হবে ১৪৯ টাকায়। খোলা কিনলে ১২৫ টাকা দাম পড়বে।

নতুন দাম বৃহস্পতিবার থেকে সারাদেশে কার্যকর হবে। ভোজ্যতেল পরিশোধন ও বিপণনকারীদের সংগঠন বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন সয়াবিন তেলের দাম ৪ টাকা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বুধবার সংগঠনের সচিব মো. নূরুল ইসলাম মোল্লার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। এর আগে ২৭ মে সয়াবিন তেলের দাম এক লাফে ৯ টাকা বাড়ানো হয়েছিল। এতে বোতলজাত এক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ১৪৪ টাকা থেকে বেড়ে ১৫৩ টাকায় পৌঁছায়।

এদিকে লিটারে ৪ টাকা কমানোর ঘোষণা দেওয়া হলেও ৫ লিটারের এক বোতল সয়াবিন তেলের দাম ১৬ টাকা কমছে। ৭২৮ টাকার পরিবর্তে বর্তমানে ৭১২ টাকায় কেনা যাবে। অন্যদিকে, প্রতি লিটার খোলা পাম অয়েলের দাম ১১২ টাকা থেকে কমে ১০৮ টাকা হবে।

ভোজ্যতেলের দাম কমানোর বিষয়ে সংগঠনটি জানায়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে পবিত্র ঈদুল আজহা, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ও ভোক্তার ক্রয়-ক্ষমতা বিবেচনায় সয়াবিন, পাম ও অন্যান্য ভোজ্যতেলের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন