খালেদা জিয়ার মুক্তিতে ড. কামালকে রাজপথে চায় বিএনপি

ইমান২৪.কম: একাদশ জাতীয় সংসদের তথাকথিত নির্বাচনের ওপরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোগে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানটি সংসদের তথাকথিত নির্বাচনের ওপরে হলেও এখানে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে কর্মসূচি ঘোষণার বিষয়টি সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পেয়েছে।

গণশুনানিতে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের ৪১ জন প্রার্থী বক্তব্য রাখেন। এরমধ্যে প্রায় ৩৭ জনই বেগম জিয়া মুক্তির দাবিতে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে কর্মসূচি ঘোষণার দাবি জানান এবং কর্মসূচিতে ড. কামাল হোসেনকে রাজপথে চান তারা।

শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে গণশুনানিতে প্রার্থিরা এসব কথা বলেন। গণশুনানীতে প্রধান বিচারক ছিলেন গণফোরাম সভাপতি ও ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন।

একাদশ ভোটে নোয়াখালী-২ আসন থেকে বিএনপির প্রার্থী জয়নুল আবদিন ফারুক বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি করতে কেনো কর্মসূচি দেওয়া হয় না? কেনো ৩০ ও ৩১ ডিসেম্বর কোন কর্মসূচি দেওয়া হলো না? আর সহ্য হচ্ছে না মহাসচিব। গণশুনানি চলছে। দলে কোথাও কোন ভুল হচ্ছে কিনা, এজন্যও গণশুনানি প্রয়োজন।

কুমিল্লা-১০ আসনের বিএনপির প্রার্থী মনিরুজ্জামান হক চৌধুরী বলেন, নির্বাচনে কারচুপি ও ভোট চুরির কারণে আমরা কেন্দ্রীয় থেকে কেনো কিছু করতে পারলাম না। এজন্য একটি গণশুনানি করা দরকার। এছাড়া কেনো আমরা প্রার্থীরা এক হতে পারলাম না। আর যুগ্ম মহাসচিব ও স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বলেন, কর্মসূচি দেন। তারা যদি একথা বলেন তাহলে কর্মসূচি দেবে কে? মনে হচ্ছে, প্রার্থী হয়ে আমরা অপরাধ করেছি। এজন্য জবাবদিহিতা করতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের প্রার্থী নজরুল ইসলাম আজাদ বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কর্মসূচি ঘোষণা করুন।

কক্সবাজার-৪ আসনের প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী বলেন, বেগম জিয়ার মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার রক্ষার দাবিতে আন্দোলনে নামতে হবে। তা না হলে কিছুই হবে না।

মাগুরা-২ আসনের বিএনপির প্রার্থী নিতাই রায় চৌধুরী বলেন, ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন শুরু করতে হবে। কারণ বেগম জিয়া মুক্তি না হলে কিছু হবে না।

ঢাকা-২ আসনের প্রার্থী খন্দকার আবু আশফাক বলেন, নির্বাচনের পরে আমরা কোন কর্মসূচি দিতে পারলাম না। এখন বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে কর্মসূচি দিতে হবে।

নরসিংদী-৪ আসনের প্রার্থী সরদার সাখাওয়াত চৌধুরী বকুল বলেন, নির্বাচনের পরেও বেগম জিয়াকে আমরা মুক্ত করতে পারিনি। খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আমরা কর্মসূচি চাই।

সকাল ১০ টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। ১ থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত বিরতি দেওয়া হয়। পরে দুপুর আড়াইটা থেকে বিকেল ৫ টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত দ্বিতীয় অধিবেশনে এ গণশুনানী চলে। গণশুনানিতে বিএনপি ও ফ্রন্টের প্রায় ২০০ প্রার্থী উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন, গীতা ও বাইবেল পাঠ করা হয়। পরে চকবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ও আহতদের স্মরণে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এরপর উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ড. কামাল।

শোক প্রস্তাব পাঠের পরে গণশুনানিতে প্রথম বক্তব্য রাখেন লালমনিহাট-৩ আসনের বিএনপির প্রার্থী আসাদুল হাবিব দুলু।

গণশুনানিতে জুরি বোর্ডে ৭ জন বিচারক ছিলেন। তারা হলেন- ড. কামাল হোসেন, ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ, ড. আসিফ নজরুল, মহসীন রসিদ, অধ্যাপক নূরুল আমিন বেপারী, প্রফেসর দিলারা চৌধুরী, সা কা ম আনিসুর রহমান খান।

গণশুনানি পরিচালনা করেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা আব্দুস সালাম, সৈয়দ মোয়াজ্জেমন হোসেন আলাল, জগলুল হায়দার আফ্রিক, শহীদ উদ্দিন স্বপন।

এছাড়া বিএনপির বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণশুনানীতে জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরাম নেতা সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসীন মন্টু, বিএনপি নেতা জয়নুল আবেদিন ফারুক, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীসহ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঐক্যফ্রন্ট, বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীরা বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন:  পাক-ভারত সীমান্তে গোলাগুলি : মর্টার শেল ও ভারী গোলাবর্ষণ

চুপ করে বসে থাকবো না, পাল্টা হামলা চালাব: ইমরান খান

হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?

ভারত-পাকিস্তান সিমান্ত রণসাজে সজ্জিত, ৬০০ ট্যাংক পাঠালো পাকিস্তান

আবারও ব্যাপক সংঘর্ষ কাশ্মীরে, ভারতীয় বাহিনীর মেজর-সহ নিহত ৫

জাপানি নারীর ইসলাম গ্রহণের হৃদয়বিধারক ঘটনা ও পর্দার প্রতি সন্মান

ফেসবুকে লাইক দিন