খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত : প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। এ সময়ের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদককে লিভ টু আপিল করতে বলা হয়েছে।

উল্যেখ্য গত সোমবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে হাইকোর্ট চার মাসের জামিন দেন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে এ আদেশ স্থগিত চেয়ে প্রথমে দুদক তারপরপর রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে পৃথক আবেদন করে। চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আবেদন দুটি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে আজ শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন।

আজ বুধবার সকালে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত আদেশ দেন।

আদালতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।

আদালত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন ১৮ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করায় প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের পদত্যাগ চেয়ে বিক্ষোভ করেছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

এসময় বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আদালত ভবন থেকে বের হয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগসহ নানা স্লোগান দিতে দিতে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবন প্রদক্ষিণ করেন।

এর আগে আজ সকাল সোয়া ৯টায় প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার বিচারপতির সমন্বয়ে আপিল বিভাগের বেঞ্চ, শুধুমাত্র দুদকের আইনজীবীর বক্তব্য শুনে আদেশ দেয়ার পর আদালতের ভিতরেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এসময় তারা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদিন বলেন, তাদের বক্তব্য না শুনে আদেশ দিলে ‘পাবলিক পারসেপশন’ ভালো হবে না। তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা পাবলিক পারসেপশনের দিকে তাকাই না। কোর্টকে কোর্টের মত চলতে দিন।’ এক পর্যায়ে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আদালত কক্ষ থেকে লজ্জা লজ্জা বলে বের হয়ে আসেন।

আরও খবর পেতে আমাদের সাথেই থাকুন.. ইমান২৪.কম

ফেসবুকে লাইক দিন