কোরবানি দিতে গিয়ে আহত শতাধিক ব্যক্তি

ইমান২৪.কম: কোরবানি দিতে গিয়ে আহত হয়ে রাজধানীসহ আশপাশের জেলার শতাধিক লোক এসে চিকিৎসা নিচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে। প্রতিবছরই কোরবানি দেওয়ার সময় অসচেতনতার কারণে অনেকে আহত হন।

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আজ বুধবার (২১ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত প্রায় শতাধিক ব্যক্তি কোরবানি দেওয়ার সময় আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। দিনভর এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। তবে বিকেলের পর আহতের সংখ্যা কিছুটা কমে যেতে পারে।

আরো পড়ুন>> খুলনায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোরবানীর সকল বর্জ্য অপসারণ সম্ভব হবে। এ লক্ষ্যে সিটি করপোরেশন (কেসিসি) বুধবার (২১ জুলাই) দুপুর থেকেই কাজ শুরু করেছে। এর আগে কেসিসি পবিত্র ঈদুল আজহায় পশু কোরবানির জন্য নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডের ১৪০ পয়েন্ট নির্ধারণ করে দেয়। এর বাইরেও বিভিন্ন স্থানে কোরবানী করা হয়েছে।

কেসিসি’র ভেটেরিনারি সার্জন ডা. মোহাম্মদ রেজাউল করীম জানান, কোরবানির পশুর বর্জ্য ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণের সব প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। জীবাণুমুক্ত করতে ছিটানো হচ্ছে ব্লিচিং পাউডার ও স্যাভলন। দুপুর থেকেই বর্জ্য অপসারণের কাজ শুরু হয়। পরিবেশ দূষণ রোধে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতি বছর ঈদুল আজহার দিন খুলনা মহানগরীতে বাড়ির সামনে এবং রাস্তার ওপর গরু-ছাগল কোরবানি দেওয়া হয়। এর ফলে পরিবেশ দূষিত হয়।

এতে দুর্গন্ধ ছড়ায় এবং ড্রেনের পানি চলাচল বিঘ্নিত হয়। বর্জ্য অপসারণে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বেগ পেতে হয়। এছাড়া পশু জবাই দেখে অনেক শিশু ভয় পায়। এ অবস্থা নিরসনে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে এবার ঈদে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ, মশক নিধন কাজ এবং করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে নগরীর সড়ক জীবাণুমুক্ত করার কাজ একসঙ্গে চলবে।

এ জন্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণে ও নগরীর বিভিন্ন স্থান জীবাণুমুক্ত করতে ৬ টন ব্লিচিং পাউডার এবং ৪০০ লিটার স্যাভলন ক্রয় করা হয়েছে। এগুলো জনসংখ্যা অনুযায়ী ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে বিতরণ করা হয়েছে। ৩১ ওয়ার্ডে প্রায় ৮০০ জন কর্মী কাজ করবেন।

ফেসবুকে লাইক দিন