কাশ্মিরের সাহায্যের জন্য আমরা প্রস্তুত: পাক সেনাপ্রধান

ইমান২৪.কম: কাশ্মীরিদের সহায়তায় পাকসেনা প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া।

বলেছেন, অধিকৃত কাশ্মীরের জনগণের সাহায্যে সবকিছু করতে প্রস্তুত তার সৈন্যরা। ভারতীয় সংবিধান থেকে ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল ঘোষণার পরদিন মঙ্গলবার

রাওয়ালপিন্ডিতে শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন বাজওয়া। সেখানেই এসব কথা বলেন তিনি। তিনি বলেন, আমরা প্রস্তুত এবং আমাদের লক্ষ্য পূরণে যে কোনো পর্যায়ে যেতে বদ্ধপরিকর। কাশ্মীরিদের ন্যায়ের

সংগ্রামে শেষ পর্যন্ত পাশে থাকবে পাক সেনাবাহিনী। কাশ্মীরের ব্যাপারে ভারতের নিপীড়নমূলক পদক্ষেপকে বর্ণবাদী অভিহিত করে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, আমরা একটা বর্ণবাদী আদর্শের বিরুদ্ধে লড়াই করছি।

আমাদের লড়াই বর্ণবাদের বিরুদ্ধে। কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত ও পাকিস্তানকে সংযত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। সোমবার মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, ভারত

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাখ্যানের পর সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে জাতিসংঘ। তিনি জানিয়েছেন, জম্মু ও কাশ্মীরে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধবিরতি পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি সীমান্তে সামরিক শক্তি বৃদ্ধির

বিষয়টিও জাতিসংঘ পর্যবেক্ষণ করছে। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ইসলামাবাদের করণীয় ঠিক করতে মঙ্গলবার পাক পার্লামেন্টে শুরু হয়েছে যৌথ অধিবেশন। সেখানেই ইমরান বলেন, সরকারের

দায়িত্ব নেয়ার পর আলোচনার জন্য বারবার ভারতের দরজায় গিয়েছি। কিন্তু এক সময় আমি বুঝতে পারলাম, তারা আমাদের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী না। আমাদের আগ্রহকে তারা দুর্বলতা হিসেবে দেখছে। এখন বুঝতে

পারছি, কেন তারা আলোচনা চায় না। কাশ্মীর ইস্যুতে বিজেপির সিদ্ধান্ত হঠাৎ কোনো কিছু নয়। এটা তাদের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। বর্ণবাদী আদর্শ থেকেই তারা এটা করছে। তারা সবক্ষেত্রে মুসলিমদের বিরুদ্ধে হিন্দুত্বের

প্রাধান্য দিয়ে বর্ণবাদের বাস্তবায়ন করছে। এর মাধ্যমে তারা নিজ দেশের এবং আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করছে। এর আগে নয়াদিল্লির পদক্ষেপকে বেআইনি বলে নিন্দা জানান ইমরান খান। একই সঙ্গে পারমাণবিক

অস্ত্রধারী প্রতিবেশী দু’দেশের মাঝে সম্পর্কের আরও অবনতি ঘটবে বলে হুশিয়ারি দেন তিনি। কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতকে উপযুক্ত জবাব দিতে ইমরানের সরকারকে ‘পূর্ণ সহযোগিতা’

দেবে বলে জানিয়েছে বিরোধী দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন)। মঙ্গলবার দলটির সভাপতি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই শাহবাজ শরিফ এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন।

আরো পড়ুন>> ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে চীন। ভারতের এই সিদ্ধান্তকে অগ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করেছে বেইজিং। ভারতের সিদ্ধান্তের পরদিন

আজ চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে নিজেদের এই অবস্থানের কথা জানায়। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, বিবৃতিতে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিং বলেছেন, ‘ভারতের এই কর্মকাণ্ড অগ্রহণযোগ্য’।

নয়াদিল্লির এ সিদ্ধান্ত চীনের সীমান্তবর্তী অংশের (কাশ্মীরের একাংশ চীনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে) সার্বভৌমত্বকে দুর্বল করবে। হুয়া চুনিং আরও বলেন, সীমান্ত সংক্রান্ত বিষয়ে যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া ক্ষেত্রে ভারতের উচিত

দুই দেশের মধ্যকার চুক্তিগুলো কঠোর ভাবে মেনে চলা। এতে করে দুই দেশের মধ্যে সীমান্ত বিষয়ক সম্পর্কের অবনতি এড়ানো যাবে। কাশ্মীর ভূখণ্ড তিনটি দেশের নিয়ন্ত্রণে। লাদাখসহ জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের নিয়ন্ত্রণে।

পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে কাশ্মীরের পশ্চিম অংশ। আর চীনের নিয়ন্ত্রণে আছে এর উত্তরের অংশ। প্রায় ৭০ বছর আগে বিশেষ মর্যাদা পেয়েছিল ভারতনিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীর। তবে সোমবার সেই মর্যাদা বাতিল করেছে

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। সেই সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীরকে ভেঙে দুই ভাগ করা হয়েছে। অর্থাৎ একই সঙ্গে বিশেষ মর্যাদা গেল, গেল রাজ্যের মর্যাদাও। ভারতের এমন সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আগেই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে পাকিস্তান। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ভারতের এই বেআইনি সিদ্ধান্তের ফলে আঞ্চলিক শান্তি, সম্প্রীতি ও নিরাপত্তা নষ্ট হবে।

ইমান২৪/এ/আর

ফেসবুকে লাইক দিন