করোনা ভাইরাসে কাফন-দাফনের বিশেষ টিম: আলেমদের প্রশংসায় প্রধানমন্ত্রী

ইমান২৪.কম: করোনায় মৃতদের থেকে যেখানে বাবা মা ভাই বোন আত্মীয়রা সরে যাচ্ছে সেখানে আলেমরা এগিয়ে আসছে, এটা মহৎ কাজ। আপনারা অনেক বড় কাজ করছেন। আপনারা হৃদয়ের কাজ করছেন। আপনারা এরজন্য মহা প্রতিদান পাবেন।

সোমবার (২০ এপ্রিল) গণভবনে দেশব্যাপী করোনাভাইরাস মোকাবিলার কার্যক্রম সমন্বয় করার লক্ষ্যে ভিডিও কনফারেন্স কিশোরগঞ্জ জেলার সঙ্গে মতবিনিময় করার সময় তিনি এ সব কথা বলেন। কনফারেন্স চলা কালে প্রধান্ত্রীর সঙ্গে যুক্ত হোন কিশোরগঞ্জের আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ্- রহ. ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি।

তিনি এ করোনার দুর্যোগে আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ্- রহ. ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম তুলে ধরে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমরা কিশোরগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত যারা নিহত হচ্ছে তাদের কাফন দাফনের ব্যবস্থা করছি। শুধু মুসলিমই নয়, হিন্দ খ্রিস্টান মুসলিম যারাই মৃত্যু বরণ করছে তাদের কাফন দাফন আর সৎকারের ব্যবস্থা করছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ্- রহ. ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা আলেমদের প্রশংসা করে বলেন, আপনারা অনেক বড় কাজ করছেন। মানবিক কাজ করছেন হৃদয়ের কাজ করছেন। আপনারা এর প্রতিদান পাবেন। রাসুল সা. আমাদের এ শিক্ষাই দিয়েছেন।

তিনি জেলা প্রশাসককে তাদের পিপিই থেকে শুরু করে সুরক্ষার সব রকমের দায়িত্ব দিতে নির্দেশ দেন। সোমবার (২০ এপ্রিল) ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর ও মানিকগঞ্জ জেলা এবং ময়মনসিংহ বিভাগের জেলাগুলোর সঙ্গে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্স করেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে, বিভিন্ন সময় চার দফায় ৪৩টি জেলায় জেলা প্রশাসকদের কার্যালয়ে সংযুক্ত হয়ে ভিডিও কনফারেন্সে মতবিনিময় করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী এ জেলা সম্পর্কে আরো বলেন, কিশোরগঞ্জ থেকেই স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন সময় উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাহেব, অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসাবে যুদ্ধ পরিচালনা করার দায়িত্ব নিলেন এরপর জিল্লুর রহমান সাহেব রাষ্ট্রপতি,

এখন হামিদ সাহেব রাষ্ট্রপতি; মানে কিশোরগঞ্জ হলো রাষ্ট্রপতির জেলা। সে জন্য কিশোরগঞ্জ মনে করে আমরা তো রাষ্ট্রপতি; এটাও আবার একটা বিষয় আছে। এ জন্য বোধহয় কিশোরগঞ্জের উন্নতির কিছুই হয় না।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘যাই হোক আবার মনে হয়, অনেক ব্যবসায়ী-ট্যবশায়ী আছে; একটা আধুনিক রাইস মিল যদি করা যায় তাহলে এই কৃষকরাও যথাযথ দাম পাবে, আর এই ফসলটাও আমরা রাখতে পারব- তাছাড়া আপনারা জানেন যে, কয়েকটা নতুন সাইলো তৈরি করছি। যেমন সান্তাহারে আমরা করেছি। যার ফলে তিনবছর পর্যন্ত চাল সেখানে ভালো থাকবে। সেখানে ছিলিং সিস্টেম আছে।’

ফেসবুকে লাইক দিন