সোলেইমানির জানাযায় পদদলিত হয়ে নিহত ৫০

ইমান২৪.কম: সোলাইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরো ৪৮ জন।

মঙ্গলবার ইরানের সরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের বরাত দিয়ে ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যম হুরিয়াত এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরানের কেরমান প্রদেশে মঙ্গলবার সোলাইমানির দাফন সম্পন্ন হওয়ার কথা ছিল। জানাজায় যোগ দিতে যাওয়া অনেকে পদদলিত হয়ে মারা যায়।

জানাজা শেষে কেরমানের কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন করার কথা রয়েছে। গত শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব বিস্তারের স্থপতি হিসেবে পরিচিত কুদস ফোর্সের শীর্ষ এই জেনারেলকে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়।

এর আগে সোমবার সকালে ইরাক থেকে যখন জেনারেল সোলেইমানির মরদেহ ইনকিলাব চত্বরে পৌঁছায় তখন লাখ লাখ মানুষের উপস্থিতিতে জনসমুদ্রে রূপ নেয় তেহরান।

পরে সেখান থেকে তার মরদেহ তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে নেয়া হয়। সেখানে দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি নিহত এ জেনারেলের জানাজায় নেতৃত্ব দেন।

মঙ্গলবার সকালে ইরানের জনিপ্রয় এই জেনারেলের মরদেহ তার নিজ শহর কেরমানে নেয়া হয়। শোকাহত লাখ লাখ মানুষের উপস্থিতি জানাজা অনুষ্ঠানে বিশৃঙ্খলা তৈরি করে।

সোলেইমানির মরদেহবাহী কফিন ঘিরে লাখো মানুষের জনসমুদ্রের ছবি দেখিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়, জেনারেল সোলেইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ৩৫ জন নিহত ও ৪৮ জন আহত হন। মার্কিন ড্রোন হামলায় সোলেইমানির মৃত্যু ঘিরে ইরানে তিনদিনের শোক পালন করা হয়।

মঙ্গলবার তার জানাজা অনুষ্ঠানে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর প্রধান হোসেইন সালামি আমেরিকার বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দেন।

সোমবার তেহরানে জেনারেল সোলেইমানির প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

দেশটির লাখ লাখ মানুষ কুদস ফোর্সের নিহত এই প্রধানের জানাজায় অংশ নেন। দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি নিহত জেনারেলের জানাজা নামাজ পড়ানোর সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন।

ফেসবুকে লাইক দিন