কক্সবাজারে চিংড়ি ঘেরের দখল নিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষ, নিহত ২

ইমান২৪.কম: কক্সবাজারের পেকুয়ায় চিংড়ি ঘেরের দখল নিয়ে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে দুইজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিলাহাছুরা এলাকার একটি ওয়াকফ স্টেটের বিরোধপূর্ণ চিংড়ি ঘেরে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন— পূর্ব বিলাহাছুরা গ্রামের মৃত আবদুর রহমানের ছেলে নেজাম উদ্দিন (৪০) ও জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে মো. আজিজ প্রকাশ রাখাল (২২)।

জানা গেছে, স্থানীয় মমতাজুল ইসলাম ও জালাল উদ্দিনের লোকজনের মধ্যে চিংড়ি জমি দখল নিয়ে এই সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। এ সময় উভয়পক্ষে অন্তত শতাধিক রাউন্ড গুলিবিনিময় হয়।

এ খবর নিশ্চিত করে পেকুয়া থানা জানায়, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।

সেই ওয়াহেদ ম্যানশনে সব পুড়ে গেলেও অক্ষত কোরআন-হাদিসের বই

সেই ওয়াহেদ ম্যানশনে সব পুড়ে গেলেও অক্ষত কোরআন-হাদিসের বই

ইমান২৪.কম: পুরান ঢাকার চকবাজারের চুড়িহাট্টার হাজী ওয়াহেদ ম্যানশনে আগুনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৬৭ জন নিহত হয়েছেন। সেই আগুনের সূত্রপাত কীভাবে সেটি এখনও নিশ্চিত নয়। তবে এই আগুনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় চারতলা ওয়াহেদ ম্যানশন!

অবাক করার বিষয় হলো আগুনে ওয়াহেদ ম্যানশনসহ পাঁচটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হলেও অপার বিস্ময়ে অক্ষত অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদ। আগুনে মসজিদের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। পাশে রাজমনি হোটেলের সামনের শাটার, হাড়িপাতিল ও আসবাবপত্রও পুড়ে গেলেও পুরোপুরি অক্ষত ছিল হোটেলে প্রবেশদ্বারের ওপরে লেখা কালেমা তৈয়্যবা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (সা.)’।

আর পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাওয়া ওয়াহেদ ম্যানশনের ভেতরে রয়েছে আরেক বিস্ময়! আগুনে ভবনের ভেতরে থাকা সব আসবাব পুড়ে কয়লা হলেও অক্ষত আছে ভবনের দোতলার একটি ফ্ল্যাটের একটি কক্ষে থাকা পবিত্র কোরআন শরিফ ও হাদিসের গ্রন্থসহ অন্য বইগুলো।

সেই ওয়াহেদ ম্যানশনে সব পুড়ে গেলেও অক্ষত কোরআন-হাদিসের বই

শুক্রবার সকালে ওয়াহেদ ম্যানশনে গিয়ে দেখা যায়, ভবনটির নিচতলা থেকে শুরু করে প্রতিটি ফ্লোরই আগুনে পুড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু নিচতলার একটি গোডাউনে এখনো প্রচুর পরিমাণে রাসায়নিক পদার্থ অক্ষত অবস্থায় মজুদ রয়ে গেছে।

ভবনের সব ফ্লোরে আগুনের ভয়াবহতার চিহ্ন, ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে গোটা ভবনটি! সিড়ি বেয়ে উপরে উঠতে গেলে দেখা যায়, আগুনে পোড়া জিনিসপত্রগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। রান্নাঘরে চুলার উপরে থাকা হাঁড়ি, কড়াই সব পুড়ে কয়লা হয়ে আছে, খাবার ঘরে টেবিলে রাখা জগ, গ্লাস, প্লেট সবই পুড়ে গেছে।

ওয়াহেদ ভবনের প্রতিটি ফ্লোরের রুমগুলো আগুনে পুড়ে কয়লা হলেও দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষে রাখা অনেকগুলো কোরআন শরিফ ও হাদিসের বইসহ সব বই আছে পুরোপুরি অক্ষত! বিস্ময়ের ব্যাপার হলো যে ভবনের ভেতর-বাইরে সব পুড়ে কয়লা, এমনকি আশপাশের ভবনও সেখানে খোদ ভবনের ভেতরেই অক্ষত আছে পবিত্র কোরআন-হাদিসের বইগুলো! সেখানে থাকা একটি বইও আগুন স্পর্শ করেনি।

কোরআন ও হাদিসের বই সাজিয়ে রাখা কক্ষটিতে থাকা কয়েকটি চেয়ার এবং ছোট টেবিল পুড়ে কয়লা হয়ে আছে, কিন্তু বুক সেলফ ও বইগুলো আছে ঠিক আগের মতো সাজানো গুছানো! দেখে মনে হবে এখানে যেন কোনো কিছুই হয়নি।

চকবাজারে আগুনে পুড়ে তিন স্বজন হারানো বাদশা মিয়ার সঙ্গে কথা বলার ফাঁকে কোরআন-হাদিস অক্ষত থাকার বিষয়ে আলোচনা করলে তিনি বলেন, ‘ভাই, ভবনের পাশে মসজিদও তো কিছু হয়নি! পুরো একটা ভবন পুড়ে ছাই হয়ে গেলো অথচ সেখানে থাকা কোরআন-হাদিসের কিছুই হলো না, এটা আল্লাহর অশেষ রহমত ছাড়া আর কিছু নয়।’

বাদশা মিয়া আরো বলেন, ‘আগুনের ঘটনার পর বাঁচার জন্য অনেকে আশপাশের ভবন ও দোকানে আশ্রয় নিয়েছেন। কিন্তু তাঁরা কেউ বেঁচে নেই। তাহলে আল্লাহর রহমত ছাড়া আগুনে দাউদাউ করে জ্বলা ভবনে কী করে এতগুলো কোরআন-হাদিসের বই অক্ষত থাকে? এটা আল্লাহর অশেষ মেহেরবানি!’

আরও পড়ুন:  পাক-ভারত সীমান্তে গোলাগুলি : মর্টার শেল ও ভারী গোলাবর্ষণ

চুপ করে বসে থাকবো না, পাল্টা হামলা চালাব: ইমরান খান

হামলার জবাব দিতে কতটুকু প্রস্তুত ভারতের সেনাবাহিনী?

ভারত-পাকিস্তান সিমান্ত রণসাজে সজ্জিত, ৬০০ ট্যাংক পাঠালো পাকিস্তান

আবারও ব্যাপক সংঘর্ষ কাশ্মীরে, ভারতীয় বাহিনীর মেজর-সহ নিহত ৫

যুদ্ধক্ষেত্রে ভারতকে উপযুক্ত জবাব দেবে পাক সেনাবাহিনী: জেনারেল আসিফ গফুর

ফেসবুকে লাইক দিন