কওমি স্বীকৃতি: প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানালেন মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমূদুল হাসান

ইমান২৪.কম: কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স (আরবি ও ইসলামি শিক্ষা) সমমান স্বীকৃতি দিয়ে ১৯ সেপ্টেম্বর সংসদে বিল পাস করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমূদুল হাসান।

যাত্রাবাড়ি মাদরাসার প্রিন্সিপাল, গুলশান কেন্দ্রীয় মসজিদের খতীব, মজলিসে দাওয়াতুল হকের কেন্দ্রীয় আমির এবং বেফাক ও আল হাইতুল উলইয়ার কেন্দ্রীয় মুরব্বী আল্লামা মাহমূদুল হাসান এক বিবৃতিতে বলেন, কওমি সনদের স্বীকৃতির যে চেষ্টা দীর্ঘদিন যাবত অতীত মুরব্বীদের সময় থেকে চলে আসছিল, যে ব্যাপারে দেওবন্দের আট মূলনীতি ও কওমি স্বকীয়তা রক্ষায় লিখিত কাঠামো পেশ করা হয়েছিল।

সে ধারাবাহিকতা বহাল রেখে প্রধানমন্ত্রী যে স্বীকৃতি দিয়েছেন, তা ইতিহাসে তাকে স্মরণীয় করে রাখবে। বিবৃতিতে তিনি আরও বলেন, কওমি অঙ্গনের এ নাগরিক অধিকার প্রদানের ঘোষণা পূর্বেও হয়েছিল। এখন সেটা বাস্তবায়ন করে তিনি প্রশংসিত হয়েছেন। নিশ্চয়ই প্রধানমন্ত্রী এ স্বীকৃতি আল্লাহকে খুশি করার জন্য দিয়েছেন এবং তিনি নিজেই একথা বলেছেন।

তাই আলেমদের উচিত স্বীকৃতিকে অবমূল্যায়ন না করা আবার স্বীকৃতির অপব্যবহার থেকেও বেঁচে থাকা। স্বীকৃতির কারণে যেন কওমি অঙ্গন তার লক্ষ্য উদ্দেশ্য থেকে বিচ্যুত না হয় এ উপদেশ দিয়ে তিনি বলেন, মাদরাসার উদ্দেশ্য মূলত কুরআন-সুন্নাহর আলোকে তাকওয়া অর্জন ও নিষ্ঠার সাথে দাওয়াতের নানা পদ্ধতিতে সমাজকে আলোকিত করা।

এ উদ্দেশ্য সাধনে স্বীকৃতি যেন অধিক সহায়ক হয় সে দিকে সংশ্লিষ্ট সবাইকে লক্ষ্য রাখতে হবে। স্বীকৃতি নেওয়ার বিষয়ে যে সব নেতিবাচক কথা চালু আছে, সেসব থেকে নিজেরা সতর্কতার সাথে আত্মরক্ষা করে নিজেদের ইলমি ও আমলি উন্নয়নে তা কাজে লাগাতে হবে। কোনোভাবেই স্বীকৃতি যেন কারোর দুনিয়াবি স্বার্থে ব্যবহৃত হতে না পারে, সেদিকেও কওমি উলামায়ে কেরামের সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।

আরও সংবাদঃ এবার সৌদি বাদশাহকে যে কথা বলে সতর্ক করলেন এরদোগান

বিশ্বের তৃতীয় পারমাণবিক অস্ত্র মজুতকারী দেশ হতে যাচ্ছে পাকিস্তান

ফেসবুকে লাইক দিন