এবার ভারতে ৮ মাসের শিশুকে ধর্ষণ!

ঈমান২৪.কম ধর্ষণ মহামারি রূপ নিয়েছে ভারতে। পরিস্থীতি এমন হয়েছে যে এর থেকে শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না। এই তো কিছুুদিন আগে ৮বছরের শিশু ধর্ষন, তার রেশ কাটকে না কাটতেই এবার এবার এই ঘটনা ঘটলো। মাত্র ৮ মাসের শিশুকে ধর্ষণ করেছেন ২১ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। আর বিষয়টি ধরা পড়েছে সিসি টিভিতে।

ভারতের এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ইনডোরে মা-বাবার পাশে ঘুমিয়ে ছিল শিশুটি। শুক্রবার ভোরে সেখান থেকে তাকে তুলে নিয়ে গিয়ে ৫০ মিটার দূরে ভবনের বেসমেন্টে ধর্ষণ করেন ওই যুবক। সিসি টিভির ফুটেজে দেখা গেছে, অভিযুক্ত যুবক তার কাঁধে করে বাচ্চাটিকে নিয়ে যায়। ধর্ষণের পর তাকে হত্যা করে।

কয়েক ঘণ্টা পরে এক দোকানি তার দোকান খুলতে এসে বেসমেন্টে শিশুটির মরদেহ দেখতে পান। পুলিশ জানিয়েছে, শিশুটির মা-বাবা বেলুন বিক্রেতা। শহরের রাজওয়াদা ফোর্টের বাইরের ফুটপাতে মেয়েকে নিয়ে তারা ঘুমিয়েছিলেন। অভিযুক্ত ২১ বছর বয়সীও এই পরিবারের পরিচিত এবং ঘটনার দিন তাদের সঙ্গেই ছিলেন।

ইনডোর পুলিশের ডিআইজি এইচসি মিশ্র বার্তা সংস্থা পিটিআইকে বলেন, ‘বাণিজ্যিক ভবনের বেসমেন্ট থেকে বাচ্চাটির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযুক্ত যুবক মা-বাবার পাশে ঘুমন্ত বাচ্চাটিকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের পরে হত্যা করেন।’ বাচ্চাটির স্পর্শকাতর অঙ্গ ও মাথায় জখমের চিহ্ন আছে। ঘটনার পরই পুলিশ ওই এলাকার সব সিসি টিভির ফুটেজ সংগ্রহ করে। এরপরই বেরিয়ে আসে ভয়াবহ এই ধর্ষণের ঘটনা।

এইচসি মিশ্র জানান, সিসি টিভির ফুটেজে দেখা গেছে, শুক্রবার ভোর পৌনে পাঁচটার দিকে অভিযুক্ত বাচ্চাটিতে সড়ক থেকে ৫০ মিটার দূরে একটি ভবনের বেসমেন্টে নিয়ে যাচ্ছে। এরপর বিকেলে সেখান থেকে বাচ্চাটির লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি আরও বলেন, ‘বাচ্চাটির মাথার জখম দেখে ধারণা করা হচ্ছে, ধর্ষণের পর তাকে বেসমেন্টে ছুড়ে ফেলা হয়েছে। শিগগিরই আমরা ধর্ষককে ধরতে সক্ষম হব।’

আরো পড়ুন>> আলহামদুলিল্লাহ, এবার মুসলমানের জন্য নামাজের ব্যাবস্থা করলো রাশিয়ার ক্রিমিয়া এয়ারপোর্ট

রাশিয়ার ক্রিমিয়া উপদ্বীপে সিমফেরোপাল এয়ারপোর্টে মুসলিম যাত্রিদের জন্য নামাজ খানা উদ্বোধন করা হয়েছে এবাং মুসলিম যাত্রীদের কুরআন তিলাওয়াতের জন্য নামাজখানাটিতে পবিত্র কুরআন রাখা হয়েছে।

ক্রিমিয়ার মুফতি রাইমা গাফারফ এ ব্যাপারে বলেন: এরপর থেকে সকল মুসলিম বিমানযাত্রীরা এই স্থানে তাদের ধর্মীয় কাজ আদায় করতে পারবেন। এই নামাজখানায় বেশ কয়েকটি জায়নামাজ, তসবিহ এবং পবিত্র কুরআনের পাণ্ডুলিপি রাখা হয়েছে।

মুফতি গাফারফ বলেন: এই নামাজখানার পাশে খ্রিষ্টান যাত্রীদের ইবাদতের জন্য এই বিশেষ স্থান নির্মাণ করা হয়েছে। এই এয়ারপোর্টে বিভিন্ন ধর্মের যাত্রীদের ধর্মীয় সুবিধা থাকার জন্য আমি অনেক আনন্দিত। iman24.com

ফেসবুকে লাইক দিন