এখন বিজ্ঞাপন দিয়েও কাজের মানুষ পাওয়া যায় না: সমাজকল্যাণমন্ত্রী

ইমান২৪.কম: সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেন, আগে দরিদ্র মানুষ বাড়িতে কাজের জন্য বসে থাকতো, এখন বাসায় কাজ করার জন্য বিজ্ঞাপন দিয়েও মানুষ পাওয়া যায় না।

আজ বুধবার সকালে রাজধানীর ইস্কাটনে জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদে ‘জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদের ৪৪তম পরিষদ সভায়’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের গত ১০ বছরের বিস্ময়কর উন্নয়ন দেখে এক সময়ের তলাবিহীন ঝুড়ি বলা দেশগুলো এখন কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছে।

ক্ষুধা বা দারিদ্র্যের কারণে দেশের কোথাও একটি মানুষও মারা যায়নি। আগে দরিদ্র মানুষেরা মানুষের বাড়িতে কাজের জন্য বসে থাকতো, এখন বাসায় কাজ করার জন্য বিজ্ঞাপন দিয়েও মানুষ পাওয়া যায় না।’

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির মাধ্যমে প্রতিটি পিছিয়ে থাকা মানুষকে সমাজের মূল স্রোতধারায় নিয়ে আসতে হবে বলেও জানান তিনি।

>>কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিল ঐক্যফ্রন্ট

খালেদা জিয়াসহ দলীয় নেতাকর্মীদের মুক্ত করতে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বুধবার বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত ৩০ ডিসেম্বর ভোট ডাকাতির প্রতিবাদে কালো ব্যাজ ধারণ ও মানববন্ধনে এ হুঁশিয়া উচ্চারণ করেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

বিকাল ৩ টা থেকে ৪টা ১০ মিনিট পর্যন্ত এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম।

আব্দুর রব বলেন, এখন আর অন্য কোন আন্দোলন নয়। আমরা দাবি করেছি, ভোট প্রত্যাখান করার জন্য। ভোট তো হয়নি, প্রত্যাখান কিসের? রাষ্ট্র, জাতি ও জনগণকে রক্ষা করতে হবে। অন্যায়কারীদের আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে বিচার করতে হবে। প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

পেশাজীবী, শ্রমজীবী ও কর্মজীবী মানুষদেরকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ লাখ লাখ নেতাকর্মীদের মুক্ত করতে হবে। তাদের মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। এ জন্য মাঠের আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। শুধু ঘরের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে হবে না। প্রতিবাদ ও কালো ব্যাজ ধারণ নয়, প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আজকে শুধু কালো ব্যাজ ধারণ করে প্রতিবাদ করছি। আমরা অপেক্ষা করে আছি, জনগণকে সাথে নিয়ে প্রতিরোধ হবে। আমরা প্রতিবাদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবো না। ৩০ তারিখে কি কি অপকর্ম করছেন, কি কি ডাকাতি করছেন, সবকিছু উলঙ্গ করে দেওয়া হবে।

৩০ তারিখে নির্বাচনে ১ শত ১৭ পয়েন্ট ৩ শতাংশ ভোট পড়েছে মন্তব্য করে রব বলেন, ৯৭ পয়েন্ট ৩ শতাংশ ভোট জালিয়াতি, ৯৭ পয়েন্ট ৩ শতাংশ হচ্ছে ব্যালটের ডাকাতি, ৫ শতাংশ হচ্ছে যারা ব্যস্ত ছিল ভোট দিতে পারে নাই, ৫ শতাংশ হলো যারা বিদেশ ছিল এবং মারা গেয়েছে, আর ১০ শতাংশ হলো গার্মেন্টস ও যারা নির্বাচনে যেতে পারে নাই। পৃথিবীর ইতিহাসে এরকম জালিয়াতি, ১০০ এর ওপরে ১১৭! ঠকের ওপর বাটপার। আর বাটপারের ওপরে বাটপারি।

তিনি বলেন, ৩০ তারিখে কোন নির্বাচন হয়নি। নির্বাচনের নামে তামাশা করেছে। গণতন্ত্র নিহত ও জাতি আহত হয়েছে। মানুষ বাকরুদ্ধ। মানুষ কথা বলতে পারে না। সন্তান জন্মের পূর্বের রাতে সন্তানকে হত্যা করা হয়েছে। কারণ ৩০ তারিখে ভোট হওয়া কথা, কিন্তু ২৯ তারিখ রাতে ভোট ডাকাতি করা হয়েছে।

৩০ তারিখের নির্বাচন প্রসঙ্গে জেএসডির সভাপতি বলেন, উপজেলা ও শিক্ষক ঘুষ দেওয়া হয়েছে। হাজার হাজার কোটি টাকা ঘুষ দেওয়া হয়েছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রিজাইডিং ও রিটার্নিং অফিসারদের- এদের সবাইকে ঘুষ দেওয়া হয়েছে।

ঐক্যফ্রন্টের এ নেতা বলেন, গণতন্ত্রের চেতনা ও মানুষের বিবেককে হত্যা করে ৩০ তারিখে ভোটেরর ফলাফলের নামে নাটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু লোক যে ডাকাতি করেছে, গণভবনে তার উৎসব করছে- পিঠার মেলা বসেছে! এখন পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে ভোট ডাকাতির জন্য।

তিনি বলেন, আমরা আছি, ঐক্যফ্রন্ট ছিল, ফ্রন্ট আছে এবং ঐক্যফ্রন্ট থাকবে। ঐক্যফ্রন্ট অটুট থাকবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান বলেন, ২৯ ও ৩০ তারিখে যে প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে, দেশের ১৬ কোটি মানুষ সেটা প্রত্যাখান করেছে। তখন আমরা বলেছি, অবিলম্বে নির্বাচন দিতে হবে। আর সেই নির্বাচন হবে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে।

একাদশ নির্বানের মধ্যে দিয়ে সরকার রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান করতে পারেনি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ২৯ ডিসেম্বর রাতে দেশের মানুষের অধিকার লুণ্ঠন হয়েছে। বিনা জানাযায়। আর ৩০ ডিসেম্বর তাকে কবর দেওয়া হয়েছে। এই কবর যারা দিয়েছে, আমলাদের সাথে পুলিশ বাহিনী- তাদের পুরস্কার দেওয়া শুরু হয়েছে। গত দুই দিন ধরে পুলিশরা তাদের পুরস্কার গ্রহণ করছেন। তারা দুটি পুরস্কারের কথা বলতে ভুলে গেছেন, একটা হচ্ছে, তাদের কতজনকে অ্যাম্বাসেডর বানাতে হবে এবং কতজনকে মন্ত্রী বানাতে হবে- এই দাবি করেন নাই।

মানববন্ধনে নেতাকর্মীদের মুখ ও চোখে কালো কাপড় বেঁধে অংশগ্রহণ করেন এবং বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করতে দেখা গেছে। এদিকে কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে দুপুর আড়াইটা থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নেতাকর্মীদেরকে জোড়ো হতে দেখা গেছে।

অপরদিকে ঐক্যফ্রন্টের মানববন্ধনকে কেন্দ্র করে প্রেসক্লাবের সামনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কঠোর নিরাপত্তার বলয় গড়ে তুলেন।

মানববন্ধনে ঐক্যফ্রন্ট নেতা সুব্রত চৌধুরী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, যুুুুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, গণফোরাম রফিকুল ইসলাম পথিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:  কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিল ঐক্যফ্রন্ট

‘ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বৃদ্ধির পেছনে ধর্মহীন শিক্ষা ও অশ্লীল সংস্কৃতি দায়ী’

গত এক মাসে ৫২ টি ধর্ষণ, ২২টি গণধর্ষণ এবং ৫টি ধর্ষণের পর হত্যা

৩৩ বছর ধরে এমপিওভুক্ত, ১৪জন শিক্ষক থাকলেও নেই কোনো ছাত্র

ইজতেমা মাঠের কাজ শুরু, দ্বিধাদ্বন্দ্ব ভুলে ময়দানে শরিক হওয়ার আহ্বান মুরব্বিদের

এখন থেকেপুলিশের বিরুদ্ধেও অভিযোগ করা যাবে সরাসরি, খোলা হয়েছে কমপ্লেইন সেল

ফেসবুকে লাইক দিন