একটু মাংস হলেও, একটু, একটু হলেও দেন! আমার বাবারে আমি কোলে নিমু!

ইমান২৪.কম: ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের সামনে স্বজনদের ভিড়। কেউ খুঁজছেন বাবা, কেউ স্ত্রীকে, কেউ ভাইকে, কেউ বোনকে। স্বজনদের এই ভিড়ে রুবিনা ইয়াসমিন খুঁজছেন তার আদরের ধন সন্তানকে।

বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে দেখা যায় ঢামেকে সামনে ছেলে রোহানকে খুঁজে ফিরছেন সন্তানহারা রুবিনা। ‘যা পান, একটু মাংস হলেও, একটু, একটু হলেও দেন! আমার বাবারে আমি কোলে নিমু! আমার বাবারে ডাকলে আসবে না? আমার বাবার অনেক স্বপ্ন ছিল, বিদেশ যাবে! ও নর্থ সাউথে এ পড়ে! আমার বাবারে আমি ডাকলে আসবে তো?

যা পান, আমার বাবার, একটু বের করে দেন! দেখেছেন? আমার বাবারে কেউ দেখেছেন?’ এইভাবেই আহাজারি করে বুক ফাটা কান্নায় ভেঙে পড়েন মা। এমনই হাজারো স্বজনের আহাজারিতে ভারী হয়ে আছে ঢামেকের মর্গ এলাকা। নিহতের স্বজনের আহাজারিতে চকবাজার থেকে ঢামেক মর্গ পর্যন্ত হৃদয়বিদারক চিত্র।

শুধু চকবাজার-ঢামেক নয়, এ ঘটনায় গোটা দেশই স্তব্ধ। মর্মান্তিক ওই দুর্ঘটনায় শোকে কাতর পুরো জাতি। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে গিয়ে দেখা যায়, শুধু লাশ আর লাশ। সারি বেঁধে লাশগুলো রাখা হয়েছে বারান্দায়। দেখে মনে হচ্ছে লাশ রাখার ঠাঁই হচ্ছে না হাসপাতালে। বেশিরভাগ নিহতের শরীর পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। চেহারা বোঝা মুশকিল। ডিএনএ টেস্ট ছাড়া লাশ শনাক্ত করা মুশকিল হয়ে পড়বে।

রাজধানীর চকবাজারের চুড়িহাট্টা এলাকার ওয়াহিদ ম্যানসনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৮১ জনের মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৭০ জন পুরুষ, ৭ জন নারী ও ৪ জন শিশু রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪১ জনের লাশ শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন নারী, দুই শিশু ও ৩৭জন পুরুষ। যাদের শনাক্ত করা গেছে তাদের মরদেহ হস্তান্তর করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: আশপাশে সব পুড়ে ছাই : অলৌকিক ভাবে অক্ষত মসজিদ

চকবাজার অগ্নিকাণ্ড: সবই পুড়ল, রইল শুধু ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’

ফেসবুকে লাইক দিন