একই মসজিদে একাধিক জুম’আর জামাত করা যাবে কি? | ইসলামী জ্ঞান

ইমন২৪.কম: জুমার নামাজ (আরবি: صلاة الجمعة‎‎ ‘শুক্রবারের সালাত’) ইসলামের অন্যতম একটি নামাজ।

جُمُعَة (জুমু’আহ) শব্দটি আরবি। এর অর্থ একত্রিত হওয়া, সম্মিলিত হওয়া, কাতারবদ্ধ হওয়া।

যেহেতু, সপ্তাহের নির্দিষ্ট দিন শুক্রবারে প্রাপ্তবয়স্ক মু’মিন-মুসলমান একটি নির্দিষ্ট সময়ে একই স্থানে একত্রিত হয়ে জামা’আতের সাথে সে দিনের জুহরের নামাজের পরিবর্তে এই নামাজ ফরজরূপে আদায় করে, সে জন্য এই নামাজকে ‘জুমু’আর নামায’ বলা হয়।

একই মসজিদে একাধিক জুম’আর জামাত করা যাবে কিনা, এ ব্যাপারে কিছু কথা তুলে ধরা হলো। মসজিদ সাধারণ দুই প্রকারের হয়ে থাকে।

১. স্থানীয় মসজিদ

২. রাস্তাঘাট বা বিভিন্ন যান স্টপেজ এরিয়ায় থাকে এমন মসজিদ

১ম প্রকার মসজিদের হুকুম: স্থানীয় মসজিদগুলোতে যদি তাতে নির্ধারিত ইমাম থাকে, তাহলে স্থানীয় লোকজনের জন্য নিয়মিত দ্বিতীয় তৃতীয় জামাত করে নামাজ পড়া মাকরূহ। এতে করে মসজিদে প্রথম জামাতের গুরুত্ব কমে যায়।

কিন্তু কখনো কোনো যৌক্তিক কারণে স্থানীয় কতিপয় নিয়মিত মুসল্লিদের প্রথম জামাত ছুটে যায়, তাহলে তারা প্রথম জামাত যেখানে আদায় হয়েছে, তার চেয়ে একটু সরে এসে দ্বিতীয় জামাত পড়তে পারে। কিন্তু এটাকে কিছুতেই নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত করা যাবে না।

অথবা উক্ত মসজিদে যদি কোন মুসাফির দল আসেন, কিংবা অন্য এলাকার বেশ কিছু লোকজন আসেন। এসে দেখেন মসজিদের নিয়মিত জামাত হয়ে গেছে, তাহলে তাদের জন্য দ্বিতীয় জামাত করার অনুমতি রয়েছে।

২য় প্রকার মসজিদের হুকুম: এসব মসজিদে দ্বিতীয় জামাত করাতে কোন সমস্যা নেই। যদিও তাতে নির্ধারিত ইমাম থাকে। যেহেতু এখানে মুসাফির, কিংবা দ্রুত স্থানান্তর হতে হবে এমন যাত্রীগণ থাকেন, তাই এসব স্থানে দ্বিতীয় জামাত হওয়াতে কোন সমস্যা নেই।

তবে যদি নির্ধারিত ইমাম না থাকে, তাহলে সর্ব সুরতে দ্বিতীয় জামাত পড়াতে কোন সমস্যা নেই।

মোটকথা : মসজিদের জায়গা বুঝে তার ওপর হুকুম প্রয়োগ হবে। ( রদ্দুল মুহতার কিতাবুস সালাত – ২/২৮৮)

আরও পড়ুনঃ ফজরের সময় জাগ্রত হওয়ার কার্যকরী কৌশল

অডিও-ভিডিও কুরআন তিলাওয়াত চালু করে অন্য কাজ করা যাবে কি?

ফেসবুকে লাইক দিন