এই পাকিস্তানি সেনারাই আমাকে রক্ষা করেছে:অভিনন্দন

ইমান২৪.কম: পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচার করা ভিডিওতে বন্দী হওয়া ভারতীয় বিমানবাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন বলেন, ধরা পড়ার পর উত্তেজিত জনতার হাত থেকে পাকিস্তানি সেনারাই আমাকে রক্ষা করেছিলেন। অভিনন্দন বর্তমান বলেন, সেখানে অনেক লোক ছিল।

আমার বাঁচার উপায় ছিল, পিস্তল ফেলে দৌঁড় দেয়া। আমি সেটাই করি। কিন্তু লোকজন তখন আমার পিছু নেয়। তারা খুব বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠছিল। ঠিক তারপরই দুই পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তা সেখানে হাজির হন এবং আমাকে রক্ষা করেন। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর এই ক্যাপ্টেনরা আমাকে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে বাঁচান।

তারা আমার কোনো ক্ষতি হতে দেননি। পরে তারা তাদের ইউনিটে নিয়ে আমাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এরপর সেখান থেকে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আমার স্বাস্থ্য পরীক্ষা–নিরীক্ষা করে আরও চিকিৎসা দেয়া হয়।

বললেন অভিনন্দন। তিনি আরও বলেন, আমি দেখেছি, সেখানে শান্তি আছে। পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে আমি সময় কাটিয়েছি এবং আমি খুব অভিভূত। ভারতীয় গণমাধ্যম সব সময় সত্যকে এদিক–সেদিক করে প্রকাশ করে। খুব সামান্য বিষয়কেও তারা এমন উসকানিমূলকভাবে উপস্থাপন করে যে মানুষ বিভ্রান্ত হয়।

অভিনন্দন বলেন, ‘সেখানে অনেক লোক ছিল। আমার বাঁচার একটিই উপায় ছিল, তা হলো পিস্তল ফেলে দৌড় দেওয়া। আমি সেটাই করি। কিন্তু লোকজন তখন আমার পিছু নেয়। তারা খুব বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠছিল। ঠিক তারপরই দুই পাকিস্তানি সেনা কর্মকর্তা সেখানে হাজির হন এবং আমাকে রক্ষা করেন।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর এই ক্যাপ্টেনরা আমাকে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে বাঁচান। তাঁরা আমার কোনো ক্ষতি হতে দেননি। পরে তাঁরা তাঁদের ইউনিটে নিয়ে আমাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এরপর সেখান থেকে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে আমার স্বাস্থ্য পরীক্ষা–নিরীক্ষা করে আরও চিকিৎসা দেওয়া হয়। পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনী খুবই পেশাদার—এ মন্তব্য করে ভারতীয় পাইলট আরও বলেন, ‘আমি দেখেছি, সেখানে শান্তি আছে।

পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে আমি সময় কাটিয়েছি এবং আমি খুব অভিভূত। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ভারতীয় গণমাধ্যম সব সময় সত্যকে এদিক–সেদিক করে প্রকাশ করে। খুব সামান্য বিষয়কেও তারা এমন উসকানিমূলকভাবে উপস্থাপন করে যে মানুষ বিভ্রান্ত হয়।

ফেসবুকে লাইক দিন