ইসলামের ফরজ বিধান জিহাদকে কলুষিত করতে জঙ্গি শব্দের আবির্ভাব করা হয়েছে: আল্লামা বাবুনগরী

ইমান২৪.কম: জিহাদ মানেই সন্ত্রাস নয়। জিহাদ আর সন্ত্রাসের মাঝে আকাশ-পাতাল ফরাক রয়েছে। জঙ্গি বলে মূলত ইসলামের অন্যতম ও ফরজ জিহাদকে এবং ইসলাম ধর্মকে কলুষিত করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন, হাটহাজারী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় এর শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা পরিচালক হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

২৫ অক্টোবর রবিবার মাগরিবের পর হাদীসের কিতাব মেশকাত শরীফের ২২২০ নং হাদিসের ব্যাখ্যায় কুরআন সংকলন ও জঙ্গে এমামার ইতিহাস বলতে গিয়ে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী আরো বলেন, জঙ্গি মূলত জঙ্গ ফার্সি শব্দ থেকে এসেছে। যার অর্থ লড়াই।সে হিসেবে জঙ্গি অর্থ লড়াকু বা সৈনিক।

কিন্তু বর্তমান ইসলাম বিদ্বেষী শক্তি এটাকে সন্ত্রাসী বলে জিহাদকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। লড়াই করলেই যদি জঙ্গি হয় তাহলে তাদের ভাষ্য অনুযায়ী দেশের সূর্য সন্তান মহান মুক্তিযোদ্ধারাও জঙ্গি হয়ে যাবে। কারণ,তারা ‘৭১ সালে দেশের জন্য লড়াই করেছেন। তাঁদেরকে জঙ্গি বললে আমরা কখনোই মেনে নেব না। তাঁরা জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান।

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, জিহাদ ইসলামের ফরজ বিধান। আর সন্ত্রাস ইসলামে সম্পূর্ণ হারাম। জিহাদের সাথে সন্ত্রাসের দূরতমও কোন সম্পর্ক নেই। কিন্তু বর্তমান ইসলাম বিদ্বেষী শক্তি জিহাদ আর সন্ত্রাসের পার্থক্যও করতে পারে না। জঙ্গি মানেই যদি সন্ত্রাসী হয় তাহলে সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী যারা জঙ্গি বিমান চালায়। এবং এর প্রশিক্ষণ নেয়।

তিনি আরো বলেন, ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য প্রয়োজনে রক্ত দিতে হবে। আজকে সব জায়গায় ইসলাম ও ইসলামের নবীকে নিয়ে কটাক্ষ করা হচ্ছে। আমাদের নবীর নবুয়তকে নিয়ে যড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

মুসাইলামাতুল কাজ্জাবের অনুসারী কাদিয়ানীরা আমাদের নবীকে শেষ নবী মানতে অস্বীকার করে আমাদের কলিজার টুকরা নবীকে অপমান করেছে। সাহাবায়ে কেরাম যেভাবে মুসাইলামাতুল কাজ্জাবের বিরুদ্ধে রক্ত দিয়েছেন, আমাদেরকেও সাহাবায়ে কেরামের ন্যায় রক্ত দিতে হবে। এসময় অনতিবিলম্বে কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণার জোড় দাবি জানান হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

ফেসবুকে লাইক দিন