তালাক দেয়া স্ত্রীর সাথে কথা বলায় স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে দিলো ২য় স্ত্রী!

ইমান২৪.কম: পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রী রিক্তা খাতুন ধাঁরালো ব্লেড দিয়ে স্বামী মো. আছাদ মন্ডলের পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছে এ অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর পাংশা পৌর শহরের বিষ্ণুপুর গ্রামে। জানা গেছে, শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) রাত অনুমান সাড়ে ৩ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

আছাদ মন্ডল বিষ্ণুপুর গ্রামের মো. সামাদ মন্ডলের ছেলে। এ ঘটনায় বাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা ঘাতক স্ত্রী রিক্তা খাতুনকে আটক করে পাংশা থানা পুলিশে সোর্পদ করেছে। স্বামী আছাদ মন্ডল চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আছাদ মন্ডলের পরিবার ও এলাকা সূত্রে জানা যায়, আছাদ মন্ডলের প্রথম স্ত্রী সালমা খাতুন এর সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর প্রায় ২ বছর আগে কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার গোপক গ্রামের লিয়াকত আলী খাঁর কন্যা রিক্তাকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বিয়ে করে।

আছাদের স্ত্রী রিক্তা খাতুন বলেন, আমার স্বামী আছাদ মন্ডল তার তালাক প্রাপ্ত স্ত্রী সালমা বেগমের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে। বিষয়টি আমি জানার পর (স্বামী) আছাদের সাথে আমার প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ ও মারামারি হতো।

এই বিষটির জের ধরে গত রাতে আছাদের সাথে আমার কথা কাটাকাটি হয় পরে আছাদ ঘুমিয়ে পড়লে আমি ধাঁরালো ব্লেড দিয়ে আছাদের পুরুষাঙ্গ কর্তন করি। অপরদিকে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় আছাদ জানান, আমি ঘুমিয়ে ছিলাম এমন সময় আমার স্ত্রী ধারালো আমার পুরুষাঙ্গের উপর হামলা চালায়।

আছাদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, পুরুষ অঙ্গ কাটার পর আছাদ লজ্জায় কাউকে বিষয়টি জানায়নি।

পরে ব্যাথার যন্ত্রনা সইতে না পেরে সকালে পরিবারকে জানায় পরে পরিবারের লোকজন তাকে বাড়ি থেকে উদ্ধার করে পাংশা হাসপাতালে ভর্তি করে এবং স্ত্রী রিক্ত খাতুনকে আটক করে পাংশা থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

এ রির্পোট লেখা কালিন পাংশা থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি বলে জানা গেছে।

ফেসবুকে লাইক দিন